আবোল তাবোল প্রেম!!!

নাহ!! কিছু কিছু দিন আছে যখন সব কিছুই বিরক্ত লাগে।
এই যে ঝুম ঝুম বৃষ্টি হচ্ছে তা ও বিরক্ত লাগছে আয়াত এর কাছে।
ক্যাম্পাসে এভাবে একা একা বসে বৃষ্টি তে ভেজা টাঅ বিরক্তিকর লাগতেছে। কিন্তু উঠে বাসায় যেতেও ক্যামন জানি বিরক্ত ফিল করতেছে এই শুকনো মত ছেলেটা।
আজকে আকাশের মত আয়াতের ও মন খারাপ খুব। রিপা সবকিছু নাহ করে দিছে।
আয়াত বুঝে উঠতে পারছেনা এটা কি করে সম্ভব? তিল তিল করে গড়ে তোলা একটা সম্পর্ক কেমনে এত সহজে ভেঙ্গে যায়?
জানতে ইচ্ছে করছে ছেলেটার। কিন্তু তা ও সম্ভব নাহ। রিপা বলেছে ওকে কোনোদিন ডিষ্টার্ব না করতে।
কান্না আসছে খুব।
ঠিক এমন টাইমে কাধে হাত রাখলো কেউ একজন। নাহ, আয়াতের পিছনে ফিরে দেখতে ইচ্ছা করছেনা।
জানে পিছনে ফিরলেই দেখবে রিপা দাঁড়িয়ে আছে ঠোট বাকা করে।
কিন্তু ধরতে গেলে মিলিয়ে যাবে শুন্যে। দৃষ্টিভ্রম কে কখনো হাতে ছোয়া যায়না।
তাই আয়াতে দৃষ্টিভ্রমের পাল্লায় পরতে।
নাহ!! হাত টা মিলিয়ে যাচ্ছেনা। ধীরে ধীরে আরো ক্লোজড হচ্ছে।
পিছনে না থাকিয়ে পারলোনা আয়াত। হুম ঠিক এই তো। রিপা দাড়িয়ে আছে।
কিন্তু হাত ধরার পর শুন্যে মিলিয়ে গেলোনা।
ক্যামনে মিলিয়ে যাবে? মুখে টল পড়া হাসি নিয়ে মেয়েটা যে সত্যিই দাঁড়িয়ে আছে আয়াতের কাধে হাত রেখে।
এই তুমি না বলছিলা বৃষ্টি হলে আমাকে নিয়ে ভিজবা? একা একা ভিজছো কেনো?? কপট রাগী গলায় বলল রিপা।
এই প্রথম বৃষ্টি টা ভালো লাগলো আয়াতের। কারন বৃষ্টির কারনেই তো মেয়েটা তার চোখের পানি দেখছেনা। বৃষ্টির পানির সাথে মিলিয়ে আছে।

একটু পর সবাই দেখতে পেল ক্যাম্পাসে একটা কাপল বৃষ্টিতে ছোটাছুটি করছে। এর একটু পর লজ্জার মাথা খেয়ে একজন আরেকজন কে জড়িয়ে ধরে আছে। দুইজনের এই চোখে পানি। কিন্তু তা কেউ দেখছেনা। বৃষ্টি গ্রাস করে ফেলছে ওদের চোখের পানি

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৩ thoughts on “আবোল তাবোল প্রেম!!!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 1 = 1