ক্যানসার চিকিৎসায় নানামুখী উদ্যোগ

বর্তমানে জনদরদী সরকার দেশ ও দেশের মানুষের জন্য একের পর এক উন্নয়নমূলক কাজ করে চলেছে। এরই ধারাবাহিকতায় এবার সরকার দেশে ক্যানসার চিকিৎসা নিশ্চিতকরণে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তৈরির এক মহৎ উদ্যোগ হাতে নিয়েছে। দেশে প্রতি বছর দুই লাখেরও বেশি মানুষ ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছে। দেশের মোট জনসংখ্যার প্রতি ১০ লাখ মানুষের জন্য মাত্র একজন ক্যানসার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছেন। এই চিকিৎসাও ব্যয়বহুল, বিশেষ করে দরিদ্র, নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য চিকিৎসা ব্যয় কষ্টসাধ্য। এ কথা চিন্তা করেই দেশের দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষের ক্যানসার চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে উন্নত ও আধুনিক চিকিৎসা প্রদানের জন্য আওয়ামী লীগ সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। এ লক্ষ্যে চিকিৎসকদের দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। দেশে বিশেষায়িত হাসপাতাল হিসেবে জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালকে আওয়ামী লীগের বর্তমান আমলেই ২০০৯ সালের ৫০ শয্যা থেকে ১৫০ শয্যা এবং ২০১৫ সালের ১৫০ শয্যা থেকে ৩০০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। এ হাসপাতালে আধুনিক ও উন্নত চিকিৎসা প্রদানের লক্ষ্যে উন্নত ও আধুনিকমানের ক্যানসার চিকিৎসার যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন করে ক্যানসার রোগীদের স্বল্পমূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। ক্যানসার চিকিৎসা বিকেন্দ্রীকরণের লক্ষ্যে পর্যায়ক্রমে দেশের পুরাতন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুরোতে নতুন রেডিওথেরাপি মেশিন সংযোজনের কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ক্যানসারের ওষুধের বিদেশ নির্ভরতা কমাতে এবং উচ্চ মূল্যের ওষুধ সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে আনার জন্য দেশীয় কোম্পানিগুলোকে ক্যানসারের ওষুধ প্রস্তুতের ব্যাপারে উৎসাহিত করা হয়েছে। জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালসহ দেশের যেসব সরকারি হাসপাতাল এ রোগের চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে এবং ক্যান্সারের ওষুধ বিনামূল্যে প্রদানের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বেসরকারি হাসপাতালের ব্যয় মূল্যের তুলনায় প্রায় ১০ ভাগের ১ ভাগ মূল্যে সরকারি হাসপাতালে এ থেরাপি চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বিনামূল্যেও এই চিকিৎসা প্রদান করা হয়। সাধারণ মানুষকে স্বল্প মূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে ঢাকায় বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে উঠা বাংলাদেশ ক্যানসার সোসাইটি হাসপাতালের ওয়েল ফেয়ার হোম, ঢাকা আহসানিয়া মিশন ক্যানসার ডিটেকশন অ্যান্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টার ও দি ন্যাশনাল ইএনটি অ্যান্ড হেড নেক ক্যানসার ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশকে সরকারিভাবে অনুদান প্রদান করা হয়েছে। ক্যানসার চিকিৎসা সারা পৃথিবীতে একই রকম। কাজেই সরকার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশও কোনো দেশ থেকে পিছিয়ে থাকবেনা। মানসিক যন্ত্রণা ও চিকিৎসা ব্যয় একজন ক্যানসার রোগী ও তার পরিবারকে শেষ করে দেয়। কিন্তু ক্যানসার বিজয়ীদের হাসি দেখে আমরা আবার আশাবাদী হই। ক্যানসার মানেই মৃত্যু নয়। ক্যানসারকে জয় করা য়ায়। আমাদের ক্যানসারের সচেতনতা বাড়াতে হবে। তাই সবাই এগিয়ে আসুন সরকারের এই মহৎ উদ্যোগে সারা দিয়ে যার যার অবস্থান থেকে ক্যানসারের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করি।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “ক্যানসার চিকিৎসায় নানামুখী উদ্যোগ

  1. প্রতিটি নাগরিকের স্বাস্থ্য
    প্রতিটি নাগরিকের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতকল্পে সরকার সর্বদা সচেষ্ট। তারই ধারাবাহিকতায় বর্তমান সরকার ক্যানসার চিকিৎসায় নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

8 + 2 =