‘নিশ্চিহ্ন ভালোবাসা’

একশত তেত্রিশ নং প্রহলাদ সেন রোড
রোডের শেষান্তে জীর্ন একটি নিবাস,
মস্ত বড় একটা মরীচিকা পড়া লোহার গেট
ঝুঁলে আছে দুপাশের পলেস্তারা পড়া
দেয়ালটাকে আঁকড়ে;
প্রানশূন্য এই বাড়িময় সারা বেলা
অবাধে পায়তারা করে বেড়ায় নিঃশব্দেরা_
বাড়ির ঠিক পেছনে ঝোঁপের মাঝে একটি কবর
যে কবরে শুয়ে আছে আমার অর্ধাংশ ।
এপিটাফটা আগাছার প্রকোপে নিজের
দৃশ্যতা হারিয়েছে আজ বহুদিন হলো_
শ্যাঁওলার নিষ্ঠুরতায় মুছে গেছে এপিটাফে
গোঁটা গোঁটা অক্ষরে খোঁদিত আমার
প্রিয়তমার নাম ।
কবরটার কোন চিহ্নই
এখন খুঁজে পাওয়া ভার!
তবে আমার চিহ্ন আমার চিহ্নের
প্রয়োজন হয়না,
মাঝ রাত গত হয়ে যাবার পরে
রোজ যখন কবরের শিয়রে যাই
আমি মাটি ছুঁয়েই অনুভব করতে
পারি আমার সেই চিরচেনা স্পন্দন,
আমি শ্যাঁওলা পড়া এপিটাফে
চুম্বন এঁকেই হতে পারি প্রেমাতাল উন্মাদ,
আমি কবরের বুকে জেগে ওঠা
আগাছায় নাক ডুবিয়েই নিতে পারি
নেশা ধরানো সেই দীর্ঘকেশের গন্ধ ।
মাঝে মাঝে বড় সাঁধ জাগে
আমি যদি কবর হয়ে যেতাম_
তবে আমি আমার পাঁজরের মাঝে
ভালবাসাকে অতি সংগোপনে
আগলে রাখতে পারতাম !!

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

১ thought on “‘নিশ্চিহ্ন ভালোবাসা’

  1. বাহ সুন্দর কবিতা!
    বাহ সুন্দর কবিতা!

    আমার লেখা পড়ার ও ফেসবুকে আমার “বন্ধু” হওয়ার আমন্ত্রণ রইল। আগের আইডি ছাগলের পেটে।এটা নতুন লিংক :
    https://web.facebook.com/JahangirHossainDhaka

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

14 − 11 =