মহাসেন নিয়া রাজনীতি এবং একটি আবুল কবিতা

“মহাসেন” ভাইসাব তো কোন ইজ্জতই পাইল না!! বিএনপি কত আশায় ছিল “মহাসেন” রে দিয়া সরকার রে “মহাবাঁশ” দিবো!! কথায় কথায় খোঁটা দিয়া সরকার নামাইয়া দিবো কিন্তু গুলাবীর জর্জেট “মহাসেন” নজর কাড়তে পারল না!! আহারে!! গুলাবী কাইন্দো না!!
অবশেষে নাস্তিক “মহাসেন” [ যারা বিএনপি জামাতের বিপক্ষে কয় সবাই নাস্তিক জানেন না!! আর এই ব্যাটা “মহাসেন” তো এককাঠি সরেস সে বিএনপির পক্ষে কাম করে নাই!! যেইখানে কথা কইলেই নাস্তিক সেইখানে উল্টা কাম করছে “মহাসেন” !!! “মহাসেন” ব্যাটা তো মহানাস্তিক ] বিএনপির এত বড় আত্মত্যাগ মানে হরতাল প্রত্যাহারে বুইড়া আঙুল দেখাইয়া যখন অল্প কিছু মানুষের প্রাণহানি ঘটাইল তখন জনৈক ফেবুফ্রেন্ড কইল আমাদের “বাঁশের কেল্লা”র অ্যাডমিন সাব “মহাসেন” এর বাল ছিঁড়তে উইঠা পইরা লাগছেন!! তিনি পোষ্ট দিছেনঃ সরকার সব লোকজন আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়া তাদের বাড়িতে লুট পাট চালাইতেছে!!! এবং আমি তখন পুরান এক সূত্র নতুন ভাবে আবিষ্কার করলাম!! “আসলেই ছাগল হইতে বেরেন লাগে না”!!

আরে বাল সরকার যদি দুই টাকার মাল [ যেইখানে ৪০০০কোটি টাকা আমাগো অর্থমন্ত্রীর কাছে তেজ পাতা সেইখানে গরিব জেলের বাড়িতে দুই টাকার মাল থাকবো না তো কি সোনার মাছ থাকবো?? ] চুরিই করবো তাইলে কষ্ট কইরা লোকজন আশ্রয় কেন্দ্রে ডাইক্কা আনল ক্যান?? মরতে দিত তাইলেই তো তারা আরামে মাল চুরি করতে পারত পরে কথা কওয়ার মতও কেউ থাকতো না। বাঁশের কেল্লার অ্যাডমিন চোদনামি করবি ভাল কথা কিন্তু একটু লেভেলে থাইকা চোদনামি কর!! এমন করলে ক্যামনে কি!!!

তাছাড়া বাংলার আরেক সমস্যা তো আছেই !! সেইডা হইল ” আমরা সবাই হুজুইজ্ঞা” মানে হুজুগে বাঙালি!! যখন যা সামনে পাই তখন তাই নিয়া ফাল পারি [আমি নিজেও হুজুগে]। এখন আমাদের সামনে আছে “মহাসেন” !! এইতো শুরু হইল “মহাসেন” নিয়া ফালাফালি!!! “মহাসেন” নিউজফিডে স্ট্যাটাসের দেইখা বন্যা দেইখা মনে হইল “মহাসেন” আসলে বঙ্গোপসাগরে না অনলাইনে মানে ফেসবুক হইছে!!! সবাই যখন “মহাসেন”রে নিয়া স্ট্যাটাস দিছে তখন আমিও দিলাম। সবাই হুজুগে আমি ও হুজুগে।
তাই কবি বান্দর ওরফে আমি বলেছি আমার পরথম কবিতা,

“সবাই যখন ফেসবুকেতে “মহাসেন” নিয়া দিবে ফাল,
আমি তখন ক্যানো ঘরের কোনায় বসে ছিঁড়বো বাল!!! “

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

66 + = 69