শহুরে বাগান-৩

আমাদের আশেপাশে অনেক কিছুই আছে যা বাগান করার ক্ষেত্রে অনেক সহায়ক।বাগান করার ক্ষেত্রে ন্যাচারাল সার বা কীটনাশক অতুলনীয়। কারন সেগুলো তৈরীই শুধুমাত্র বাগান করার জন্য সঠিক পরিমানে ও সঠিক মিশ্রণে। তবে অনেক সময় দেখা যায় অনেক সার কীটনাশক আমরা কিনতে পারি না, কারন আমাদের জানার স্বল্পতা । আবার কিনতে গেলেও দেখা যায় অনেক সময় কাঙ্ক্ষিত দোকানের স্টক ফুরিয়ে গেছে। হতাশ মনে ফিরে আসতে হয় । তবে হ্যা! এখন যে বিষয় নিয়ে আলোচনা করব সেগুলো হবে শুধুই বিকল্প উপায়। নেহায়েত হাতের কাছে না পাওয়া গেলে, খুঁজে না পাওয়া গেলে – আমরা কি কি উপায় অবলম্বন করতে পারি সেটার দিকেই আলোকপাত করার চেষ্টা করব ।

আজকে যে বিষয়টা নিয়ে আলোচনা করব সেটা হল “বেকিং সোডা”/ বেকিং পাউডার। কেক তৈরীর অন্যতম উপাদান, দাঁত পরিষ্কার ঝকঝকে তকতকে রাখার জন্যও বেকিং পাউডারের জুরি মেলা ভার। কিন্তু এই বেকিং পাউডার বাগান তৈরির ক্ষেত্রেও অনেক গুরত্ব পূর্ণ কাজ করতে পারে। আপনার বাগানের হেলথ উন্নত করার জন্য আসুন দেখে নেই এর উপকারিতা /ব্যবহারঃ

১। কিছু ফুল ক্ষারীয় মাটিতে দারুন হয়, যেমনঃ হাইড্রেঞ্জিয়া, বেগুনিয়া, জেরেনিয়ামস ইত্যাদি ইত্যাদি। এসব ফুল গুলর গ্রোথ ভালো করতে বেকিং পাউডার ম্যাজিকের মতো কাজ করে । যদি বেকিং পাউডার এক চা চামুচ নিয়ে তা এক লিটার পানিতে গুলে যদি এসব গাছে মাটিতে দেন তাহলে এদের গ্রোথ হবে অসাধারন।
২। অনেক গাছ মরো মরো অবস্থা? সাধের গাছটিকে বা বাগানটিকে আরো সবুজ করে তুলতে এই রেসিপি ব্যবহার করতে পারেনঃ

#রেসিপিঃ
তিন লিটার পানিতে এক চা চামচ বেকিং পাউডার, ১/২ চা চামচ ক্লিয়ার এমোনিয়া আর ১ চা চামচ ইপসম সল্ট(ম্যাগ সার) নিন। এবার এই সলিউশন টা এক কাপ করে আপনার মৃতপ্রায় গাছ গুলোয় দিন। এতে আস্তে আস্তে গাছের গ্রোথ ভালো হতে থাকবে। আর অন্যান্য গাছ গুলোতেও অল্প অল্প করে মাটিতে স্প্রে করে দিন । গাছ ভালো থাকবে। কারন এই সলিউশনটা ফার্টিলাইজার হিসেবে কাজ করবে। আর ফলাফল??? নিজের চোখেই দেখতে পারবেন এর জাদুকরী ফলাফল তাও অল্পদিনে। তবে মাসে একবার স্প্রে করবেন এই সলিউশন।
৩। টমেটো গাছের মাটিতে ,গাছের গোড়া থেকে একটু দূরে একমুঠো বেকিং পাউডার দিন। মাটিতে ধীরে ধীরে বেকিং পাউডার মিশে গেলে তা মাটির এসিডিটি লেভেল কমাবে এবং টমেটোর সুস্বাদুতা বাড়বে।
৪। গাছের অনেক পোকা মাকড় তাড়াতে ,যেমনঃ এফাইডস বা গাছের উকুন, স্কেলস, স্পাইডার মাইট ইত্যাদি ইত্যাদি তাড়াতে বেকিং পাউডার খুব ভালো কাজ করে।
#রেসিপিঃ ১ চা চামচ বেকিং পাউডার+ এক কাপের তিনভাগের একভাগ অলিভ অয়েল অথবা সরিষার তেল+ এক কাপ পানি
এবার এই মিশ্রনটা আক্রান্ত গাছে সরাসরি স্প্রে করুন।

স্পাইডার মাইটঃ
?oh=6d2a2a161ed2a7d47e13bf11e260f47a&oe=5A02E28B” width=”500″ />
এফাইডসঃ
?oh=94de5972583cc20675c25ac29db481d9&oe=59F04D16″ width=”500″ />
?oh=d62a24c60dad29562be3544cf85b32c3&oe=5A004E7C” width=”500″ />

স্কেলসঃ
?oh=7fdff291abcc465573f374883b14cc96&oe=5A0741D6″ width=”500″ />

৫। যেকোন কম্পোস্ট সার তৈরির সময় অনেক দুর্গন্ধ তৈরী হয়। এই দুর্গন্ধ কমাতে সেই কম্পোস্টে একমুঠো বেকিং পাউডার দেন। এটা এসিডিটি লেভেল ও মেইনটেন করবে ও দুর্গন্ধ কমাবে।
৬। আগাছা দমনে বেকিং পাউডারের জুড়ি নেই। আগাছায় বেকিং পাউডার পানি মিশিয়ে বেশি করে দিলে পরবর্তীতে আর আগাছা জন্মাতে পারবে না ।
৭। মাটির pH চেক করতে একটা পাত্রে কিছু মাটি নিন। এবার এটা পানি মিক্স করে একটু কাদা বানান। খুব সামান্য পরিমানে বেকিং সোডা নিয়ে সেই কাদায় দিন। যদি মিশ্রণে প্রচুর বুদ বুদ তৈরী হতে থাকে তবে অবশ্যই আপনার মাটি অম্লীয় ।
৮। বেকিং পাউডার এন্টি ফাংগাল এজেন্ট হিসেবে কাজ করে যেমনঃ black spot এবং powdery mildew
#রেসিপিঃ ৩লিটার পানি + এক চামুচ লিকুইড সোপ+ এক চামুচ বেকিং পাউডার+ এক চামচ ভেজিটেবল অয়েল।
তাহলে আজ থেকে আর চিন্তা কি । হাতের কাছেই যদি বেকিং সোডা থাকে তাহলে শুরু হোক বাগান পরিচর্যার কাজ।সামনে আরো কিছু নতুন নতুন আইডিয়া নিয়ে আসার ইচ্ছা আছে। কষ্ট করে পোস্ট পড়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ ।
#হ্যাপি_গার্ডেনিং

(বিঃ দ্রঃ কোনভাবেই এই পোস্ট এর মূল উদ্দেশ্য সার বা কীটনাশকের বদলে অন্য কিছু ব্যবহার নয়। বরং এখানে বিকল্প /টোটকা ব্যবহার এর কথা বলা হয়েছে। তাই এই পদ্ধতি ব্যবহারকারী নিজস্ব সামর্থ্য অনুযায়ী করবে। )
তথ্যসুত্রঃ U.S. Department of Agriculture zone

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 59 = 61