কেন এমন, জন্মজীবন

জন্মের শিরদাঁড়া উপেক্ষা করতে ব্যার্থ হয়েছে
ফুলের অনন্ত যৌবন,
ভোরখোলা আকাশের ঘোষনা
ব্যাবহৃত হতে হতে গন্ধবিলাপ করে; জন্মের গন্ধ।
এতো ব্যাকুল তৃষ্ণাও টলাতে পারে না;
কিসের যেন ছুটোছুটি, গন্ধ-সুগন্ধ মিছিমিছি
এতো সুন্দর উৎসব তবু দম ফেলে
গাইতে পারে না।

অতল বন্ধুর তবু উদ্বেল সৃজনে
এবং বিমুগ্ধ সত্যের উপাসনায়
নিঃশেষের প্রস্তুতি, জীবনব্যাপী আয়োজনে
কেউ যেন আর হাফ ছাড়ে না,
একটা কালের দৈর্ঘ্য পরে
জন্মের শিরদাঁড়া উপেক্ষা করে আকাশটাতে
চোখ ফেরে না।
পানকৌড়ি, শ্বেত বকের উদ্দাম নৈবেদ্য;
ভেসে থাকা পদ্মের জন্য
ভালবাসা তবে দীর্ঘ যেন নয়,
সুরেভেজা নন্দিতগ্রামের বাউলাঙ্গে
মিছেই বিচ্ছেদবধ হয়।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 8 = 2