বিবাহ বহির্ভুত শারীরিক সম্পর্ক কেন জরুরী, এবং দু’একটি মন্তব্যের উত্তর

কয়েক দিন আগে ব্লগ আর ফেবুতে বিবাহবহির্ভুত শারীরিক সম্পর্ক কেন জরুরী তা নিয়ে একটা পোস্ট দিয়েছিলাম। এর ফলে অনেক বিতর্ক হয়েছে, হয়েছে আলোচনা, সমালোচনা। একবারে বেকুব হয়ে গেছিলাম যখন দেখলাম এ নিয়ে আরো দুইটা ব্লগ পোস্ট করা হয়েছে, তার মানে কারো কারো মনে আমার কথাগুলো কিছুটা হলেও দাগ কাটতে পেরেছে। ভাল যে লাগেনি তা বলবো না, বেশ ভাল লেগেছে এই ভেবে যে আমার ধারনাগুলো অন্যকেউ ভাবিয়েছে। কেউ কেউ ব্যক্তিগত আক্রমণ করতে ছাড়েননি। সবাইকে স্বাগতম।

আমি অকপটে স্বীকার করছি যে, আমার পড়াশুনা আপনাদের তুলনায় নেই বললেই চলে। আদতে আমি কাগুজে শিক্ষিতও নই, একটা চা-স্টলের মালিক। কিভাবে একটা প্রবন্ধ বা নিবন্ধ পয়েন্ট দিয়ে দিয়ে লিখতে হয় তাও আমার ভাল জানা নেই। আমি কোন মতবাদ প্রচার করতে আসিনি। আমি আমার ধারনাগুলো স্রেফ প্রকাশ করেছি মাত্র। আমি আপনাদের কাছ থেকে প্রতিটা বিষয়েরই উত্তর চেয়েছিলাম। কোন বিষয়েরই উপসংহার নিজে টানি নি।

যাই হোক, এই নিয়ে আমি দুইটা পোস্ট দেবো। একটাতে আত্মপক্ষ সমর্থন করে বিভিন্নজনের মন্তব্যের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো, আরেকটায় আবারো সেই গরুর রচনা মানে সেক্স উন্মোক্ত করা নিয়ে আরো কিছু ক্যাচাল পারবো।

এবার তাহলে, আত্মপক্ষ সমর্থনের শুরু করা যাক।

প্রথমেই যে ধাক্কার সামনে পড়তে হয়েছে তা হলো, একটা সার্বজনীন ধারনার যে, ফ্রী সেক্স মানেই অবাধ যৌনাচার। হ্যা, অনেকটা তাই মনে হতে পারে, আদতে কি তাই? ঘটনা কি এমন হয়ে যাবে যে ছেলেরা মেয়েদের দেখলেই বলবে, আসো শুয়ে পড়ি। শুনতেই অশ্লীল লাগছে, তাই না? বলুন তো সেক্স ফ্রি হয়ে গেলেও কি এই কথাটা খারাপ লাগবে না? তর্কের খাতিরে তর্ক নয়, দয়া করে সত্যি আর যৌক্তিকভাবে উত্তর দিবেন। একটা কথার ইঙ্গিত আবারো দেই, বর্তমানে ছেলেতে মেয়েতে বন্ধুত্ব, প্রকাশ্যে হাতে ধরা আগের থেকে অনেকটা ফ্রি। তাই বলে কি ছেলেগুলো যাকে ইচ্ছা তাকে গিয়ে বলছে, এই যে শুনুন আমি আপনার বন্ধু হতে চাই, টানা টানি করছে কি যাচ্ছেতাইভাবে? নাকি বন্ধুত্বটা গড়ে উঠছে পারষ্পরিক সহচর্যের মাধ্যমে। সেক্স ফ্রি থাকলে হাত ধরাধরিটা হয়ত বিছানা পর্যন্ত গড়াতো, এর বেশি কিছু কি? খুব কি হালকা হয়ে গেলো যুক্তিটা? বিবেচনা আপনাদের।

একজন কমেন্ট করেছেন,
“হাসতে হাসতে চেয়ার থেকে উল্টায় পড়তে গিয়েছিলাম। ধরুণ, একটা মেয়ে রিকশায় করে যাচ্ছে। হঠাৎ, রিকশাওয়াল বলল, “আফা আপনার সাথে আমি অফেন সেকশ করুম।” মেয়েটা ভ্রু কুঁচকে তাকাবে। ”
>>ভাইজানের কাছে প্রশ্ন, আপনি কয়জন অপরিচিত মেয়েকে এমন আক্তা (হটাত) গিয়ে বলেছেন আমি আপনার সাথে বন্ধুত্ব করুম?

ইভটজিং-এ প্রেমিকের আহবানে নারীদের সম্মতির কথা বলেছিলাম বলে আরেকটা কমেন্ট ছিল ;
“সম্মতি থাকতেই বা হবে কেন? প্রত্যেকটা মানুষের পছন্দ অপছন্দ তো আলাদা। একটা মাস্তান ছেলে প্রেমের প্রস্তাব দিলে সেটা গ্রহন করার যৌক্তিকতাটাই বা কতটুকু শুধু ইভ টিজিং এড়ানোর জন্যে ? আফসুস আপনি মুক্তমণা দেখাতে গিয়ে মুক্তমনের সাথে প্রচুর সংঘর্ষ করে চলেছেন।”
>>এই ব্যপারটা কি একজন নারীর প্রেক্ষাপটে বিবেচনা করে লিখা? না কি সার্বজনীন? যদি ছেলে মেয়ে উভয়েই যৌনশিক্ষার মাধ্যমে বড় হয় এবং তারা যদি ফ্রি সেক্সের পরিবেশে বড় হয়, তাহলে কি সঙ্গী নির্বাচনে এমন আগ্রাসী হবে? কিংবা সম্মতির ব্যপারটা আদৌ থাকবে কি? আমার মনে হয় না। যদি বলেন প্রেম ভালবাসায় যৌনতার উদ্দীপনা নেই, তাহলে, বলবো আপনি ফ্রড। ভাল মানুষ নন, ভাল মানুষীর ভান করছেন।

একটা কমেন্ট,
আপনি হয়তো জানেন না মানুষের সেক্সে একটা কমিটমেন্ট থাকে। বিশেষ করে মেয়েদের। কারন মেয়েরা প্রকৃতিগতভাবে সঙ্গী নির্বাচনের ক্ষেত্রে যত্নশীল। আপনাকে সামান্য কিছু জানানোর জন্যে আমি একটা লিংক দিয়েছিলাম আপনি হয়তো পড়ে দেখেন নি।
>>না, আমি পড়ে দেখিনি, এবং আমার পড়াশোনা খুবই অল্প। এত বেশি পড়তেও চাই না। আমি আমার চারপাশ থেকে বাস্তব অভিজ্ঞতা লব্ধ জ্ঞানেই বেশি স্বচ্ছন্দবোধ করি। মেয়েদের সেক্সের ব্যপারে মেয়েরা প্রকৃতিগতভাবেই সঙ্গী নির্বাচনের ক্ষেত্রে যত্নশীল, তার মানে কি এই দাড়ায় যে, তারা বহুগামী না? পরকিয়ার ব্যপারটাতে তো পুরুষের লালসা আর নারীর প্রয়োজন এবং আগ্রহটাই দেখি বেশি থাকে।

দুজনের সম্মতিতে সেক্স চর্চার ক্ষেত্রে আমি বলেছিলাম অধিকার, একটা কমেন্ট এরকম,
ঘুষ দুজনের সম্মতিতে হয় এবং খুব ভালভাবেই অধিকার সংরক্ষিত থাকে দুজনের। মারামারিতেও কিন্তু থাকে । আর আপনি অধিকার বলতে কি মিন করছেন? কোনটা অধিকার হবে? এখানে কিন্তু উচিত অনুচিতের প্রশ্ন এসে যায়।
>>কথাটা ছিল যেহেতু অবৈধ যৌন সম্পর্ক কমানো যাচ্ছে না, সেহেতু মিছেমিছি একে অবৈধ রাখার দরকার কি? দুজন প্রাপ্ত বয়স্কের সম্মতিতে সেক্স করা বৈধ করে দেয়া হোক। এর উত্তরে ঘুষের কথা বলাতে আমি অধিকারের কথা বলেছিলাম, এর পর এই মন্তব্য। দুঃখিত কার অধিকার বলেছি তা না বোঝানোর জন্য। ঘুষের ক্ষেত্রে যে অধিকারের কথা বলেছিলাম সেটা ছিল আম জনতার অধিকারের কথা। ঘুষের ক্ষেত্রে জনসাধারণের অধিকার খর্ব হয়, কিন্তু প্রাপ্ত বয়স্কের সম্মতিতে কার অধিকার খর্ব হয়?

এটা ছিল ব্যক্তি আক্রমন নির্ভর কমেন্ট;
আপনি এতো নতুন এবং “সাহসী” একটা মতবাদ হাজির করলেন,নিশ্চয়ই আপনি এতে মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন। এইটার পক্ষে-বিপক্ষে মন্তব্যগুলার উপর এতো প্রতিমন্তব্য দিলেন, এতো সময় ব্যয় করলেন, এই মতবাদ নিজের জীবনে ও নিজের পরিবার-পরিজনদের (মা, বাবা, ভাই, বোন, স্ত্রী, ভাবী, দুলাভাই, ভাতিজা, ভাতিজি, ভাগ্নে, ভাগ্নি, পুত্র, কন্যা, কাজের লোক, কাজের মহিলা, মালি, ড্রাইভার, দারোয়ান ইত্যাদি ইত্যাদি) উপর কতটুকু প্রয়োগ করেন সেটা জানানোর সাহস আপনার আলবাৎ আছে ।
>>হ্যা, আমি ব্যক্তিজীবনে অনেক দেখেছি, দু থেকে তিনটা পরকিয়া, কাজের বুয়ার সাথে মালিকের, মালকিনের সাথে দাড়োয়ান কিংবা ড্রাইভারদের সম্পর্কগুলো খুব কাছ থেকে দেখেছি। খুব বেশি দেখেছি বলেই আমার কাছে মনে হয়েছে, সমাজের অধিকাংশ মানুষ তথাকথিত অবৈধ কাজে জড়িত। আর তাই, আমার এ কথাগুলো।

আপাতত এই কয়েকটা কথা বলে গেলাম। পরবর্তি পোস্টে ফ্রি সেক্সের একটা রূপরেখা দাড় করাতে চেষ্টা করবো। তবে কিছুদিন সময় লাগবে মনে হয়। কারো বিরক্তির কারন হলে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪৮ thoughts on “বিবাহ বহির্ভুত শারীরিক সম্পর্ক কেন জরুরী, এবং দু’একটি মন্তব্যের উত্তর

  1. পৃথু সাহেব আপনি কি আমাকে
    পৃথু সাহেব আপনি কি আমাকে বলবেন “বিবাহ বহির্ভুত শারিরীক সম্পর্ক”, ” ওপেন সেক্স”, “ফ্রী সেক্স”, আর অগাধ যৌঅনাচারের মধ্যে কি পার্থক্য?????আমার যতটুকু মনে পড়ে আমি-ই আপনার বিবাহ বহির্ভুত দৈহিক সম্পর্ক/ওপেন সেক্সকে ‘ অগাধ যৌনাচার বলেছিলাম..……

  2. আপনার অবস্থান এবার আগের চেয়ে
    আপনার অবস্থান এবার আগের চেয়ে খানিকটা পরিষ্কার হয়েছে বলে মন হোল। কি বলতে চাইছেন সেটা মনে হয় বুঝতে পেরেছি। তবে এতোটা উদার হতে পারবে কিনা মানুষ এখনই ঠিক নিশ্চিত নই। আলোচনা কোনদিকে যায় দেখার অপেক্ষায় রইলাম। 😀

  3. অত্যান্ত দু:খের সাথে জানাচ্ছি
    অত্যান্ত দু:খের সাথে জানাচ্ছি আপনার সাথে আমি এক মত নই।

    আমি আমার বোন কে বিবাহ পুর্বে বা বিবাহের পর ও স্বামি ছাড়া অন্য কারো সাথে শারিরিক সম্পর্ক এ মিলিত হতে দেখতে পারব না।

    আসল ভালবাসার শারিরিক সম্পর্কের প্রয়োজন হয় না।

    লাইলি মজনু আরো কত যে দৃষ্টান্ত দেই ভালবাসার এরা এক অপরের সাথে কয়বার দেখা করেছে তা ঠিক নাই।

    আর এই রকম লিখার কারনে ব্লগ নিয়ে এত আলোচনা ।

    দেশের বেশির ভাগ মানুষ নিজের ইচ্ছায় ঘুষ খায় ও দেয়।
    তাহলে বলেন এটাও বৈধ হোক।

  4. লাইলি মজনু আরো কত যে

    লাইলি মজনু আরো কত যে দৃষ্টান্ত দেই ভালবাসার এরা এক অপরের সাথে কয়বার দেখা করেছে তা ঠিক নাই।

    হাসবো? না কি কাদবো? একটা উপকথা, উপখ্যান বাস্তবের জন্য দৃষ্টান্ত হয় কি করে?

    দুঃখিত ভাই, মাফ চাই। আপনার কোন কমেন্ট আর আশা করছি না।

  5. “এটা ছিল ব্যক্তি আক্রমন
    “এটা ছিল ব্যক্তি আক্রমন নির্ভর কমেন্ট;
    আপনি এতো নতুন এবং “সাহসী” একটা মতবাদ হাজির করলেন,নিশ্চয়ই আপনি এতে মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন। এইটার পক্ষে-বিপক্ষে মন্তব্যগুলার উপর এতো প্রতিমন্তব্য দিলেন, এতো সময় ব্যয় করলেন, এই মতবাদ নিজের জীবনে ও নিজের পরিবার-পরিজনদের (মা, বাবা, ভাই, বোন, স্ত্রী, ভাবী, দুলাভাই, ভাতিজা, ভাতিজি, ভাগ্নে, ভাগ্নি, পুত্র, কন্যা, কাজের লোক, কাজের মহিলা, মালি, ড্রাইভার, দারোয়ান ইত্যাদি ইত্যাদি) উপর কতটুকু প্রয়োগ করেন সেটা জানানোর সাহস আপনার আলবাৎ আছে ।
    >>হ্যা, আমি ব্যক্তিজীবনে অনেক দেখেছি, দু থেকে তিনটা পরকিয়া, কাজের বুয়ার সাথে মালিকের, মালকিনের সাথে দাড়োয়ান কিংবা ড্রাইভারদের সম্পর্কগুলো খুব কাছ থেকে দেখেছি। খুব বেশি দেখেছি বলেই আমার কাছে মনে হয়েছে, সমাজের অধিকাংশ মানুষ তথাকথিত অবৈধ কাজে জড়িত। আর তাই, আমার এ কথাগুলো।”

    যেটাকে আপনি ব্যাক্তিগত আক্রমন বলছেন সেটা ছিল আমার মন্তব্য। আমার নাম সরাসরি উল্ল্যেখ করলে আমি আরও বেশী খুশী হতাম। কারন আমি “আপনি আচারি ধর্ম, পরেরে শিখাও” এর দলে।

    আপনি পরকিয়া, অনাচার দেখেছেন। আপনি এমন কোন পরিবার দেখেন নি, যেখানে স্বামী, স্ত্রী, পুত্র সুখে দুখে একসাথে মিলে মিশে আছে? নাকি এটা আমাদের সমাজে “খুবই” বিরল?

    একটা পুরনো রসিকতা শেয়ার করি :

    দুই দরিদ্র গ্রাম্য বালক নিজেদের মধ্যে আলোচনা করছে।

    = জানোস দই দিয়া মিষ্টি খাইতে যে কিইইইইইইই মজাআআআআআআ…..

    = হাঁসাই!!!!! তুই নিজে খাইসশ?????

    = না, আমার আব্বা একজনরে হাডে খাইতে দেখসিল………….

    আপনি বারবার আমার প্রশ্ন এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। আপনি নিজের জীবনে ফ্রী সেক্স থিওরি প্রয়োগ করে এর উপকারিতা বুঝে তারপর কি অন্যদেরকে সেটা “খাওয়ানোর” চেষ্টা করছেন? নাকি আপনি “না, আমার আব্বা একজনরে হাডে খাইতে দেখসিল………….” এর দলে?

    প্রশ্ন করেছি, সৎ সাহস থাকলে উত্তর দিন। প্রশ্নটা আবার করছি : আপনি এতো নতুন এবং “সাহসী” একটা মতবাদ হাজির করলেন,নিশ্চয়ই আপনি এতে মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন। এইটার পক্ষে-বিপক্ষে মন্তব্যগুলার উপর এতো প্রতিমন্তব্য দিলেন, এতো সময় ব্যয় করলেন, এই মতবাদ নিজের জীবনে ও নিজের পরিবার-পরিজনদের (মা, বাবা, ভাই, বোন, স্ত্রী, ভাবী, দুলাভাই, ভাতিজা, ভাতিজি, ভাগ্নে, ভাগ্নি, পুত্র, কন্যা, কাজের লোক, কাজের মহিলা, মালি, ড্রাইভার, দারোয়ান ইত্যাদি ইত্যাদি) উপর কতটুকু প্রয়োগ করেন?

    Please be specific about your answer. দয়া করে আগের বারের মত প্রতি-প্রশ্ন, পাশ কাটানো লম্বা প্রতিমন্তব্য ইত্যাদি দিয়ে এড়িয়ে জাবেন না।

    আরেকটা বিষয়, “আমি অকপটে স্বীকার করছি যে, আমার পড়াশুনা আপনাদের তুলনায় নেই বললেই চলে। আদতে আমি কাগুজে শিক্ষিতও নই, একটা চা-স্টলের মালিক। কিভাবে একটা প্রবন্ধ বা নিবন্ধ পয়েন্ট দিয়ে দিয়ে লিখতে হয় তাও আমার ভাল জানা নেই।” এটা উল্ল্যেখ না করলেই কি হত না? এটা কি সহানুভূতি অর্জনের কোন প্রয়াস? না হলে ভাল। ইস্টিশনের প্রোফাইলে মনে হয় এধরনের কোন ফিল্ড নেই। আমরা কেউ জানি না কে “কাগুজে শিক্ষিত” আর কে “কম্পিউটারে শিক্ষিত”। This is totally irrelevant here. মূল বিষয় হচ্ছে এখানে আমরা যা বলি, যা প্রচার করি, তাতে আমরা নিজেরা কতটুকু নিজে বিশ্বাস করি।

  6. আপনি ফ্রি সেক্সের কথা বলছেন
    আপনি ফ্রি সেক্সের কথা বলছেন যুক্তি চসচ্ছেন??

    আপনার স্ত্রী আরেক জন পুরুষের সাথে সেক্স করছে। কেমন লাগিবে।
    আপনার মা আরেক পুরু ষের সাথে শারিরিক সম্পর্কে লিপ্ত কেমন লাগবে।

    মানুষের সবচেয়ে বড় অস্ত্র আবেগ । আবেগের বলে সব কিছু করা সম্ভব।

    এই আবাগের বলেই নিরস্ত্র বাঙ্গালি যুদ্ধে জয়ী হয়েছিলেন।

    আপনি সেই আবেগ এ আঘাত করেছেন।
    মা ডাক শুনলে দয়াময়ী গুন ময়ি এক জনের প্রতিচ্ছবি চোখের সামনে আসে। বোনের কথা বললে স্নেহ শীল কারো কথা আসে।

    আপনি তাদের কে তো পতিতা বানিয়ে দিলেন রে ভাই।

    পতিতা নিজের জীবন ভাল করার জন্য শারিরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়। আপনার কথা অনুযায়ি যার সাথে সুবিধা পাবে তার সাথেই??

    আপনি যা মনে করেন আপনার ব্যপার্। আমি একজনের সন্তান একজনের ভাই হিসাবে এইপোস্টের তীব্র বিরোধিতা করছি।

      1. সেটা তখন পতিতা বলা না হলেও তা
        সেটা তখন পতিতা বলা না হলেও তা তো পতিতা ই রয়ে যায় মুল কাজ টা তো পরিবর্তন হয় না।

          1. আমি আর বিতর্কে যেতে চাচ্ছি
            আমি আর বিতর্কে যেতে চাচ্ছি না।

            আমি আমার চিন্তা ধারা নিয়ে চলি। আপনি আপনার চিন্তা ধারা নিয়ে চলেন ।
            আপনি আমার জন্যে আপনার ধরনা বদল করবেন না আনিও করব না।

            আমি বাঙ্গালি বাঙ্গালির ঐতিহ্য ভুলতে পারব না।

          2. বাঙ্গালির ঐতিহ্যে কিন্তু
            বাঙ্গালির ঐতিহ্যে কিন্তু নারীদের বহুগামিতার সন্ধান মেলে।

            মতের অমিলটাই স্বাভাবিক, না হলে পৃথিবী উন্নতির দিকে এগিয়ে যাবে না। ধন্ধ আর সংঘাতের মধ্য দিয়েই মতবাদ এগিয়ে চলে।

          3. পৃথু-দা
            আমিও কিছু

            পৃথু-দা :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:
            আমিও কিছু যুক্তি দিব ভাবছিলাম। পরে দেখি ওনি যুক্তি মানেন না তবে নিজের বিশ্বাস রক্ষার্থে তর্ক করেন… তাই বাদ দিলাম!!

    1. এই লোকটা বোগাস| এর কথা আর
      এই লোকটা বোগাস| এর কথা আর কাজে মিল নাই| আমার কমেন্ট আর এই লোকটার রিপ্লাই পড়লেই বুঝতে পারবেন| কানে খাটো লোকের মত একটা প্রশ্ন করলে আরেকটা জবাব দেয়| পিচ্ছিল স্বভাবের| কিন্তু মনে করছে খুব স্মার্টলি জবাব দিচ্ছে| এ নাম ফাটানোর জন্য ব্লগে আসছে|

  7. আমি আপনার লেখার সাথে একমত হতে
    আমি আপনার লেখার সাথে একমত হতে পারছি না। ধরুন আপনার বাবা-মা আপনার বিয়ের জন্য কোন পাত্রী খুঁজে বের করলেন। আপনি দেখলেন এই সেই মেয়ে যার সাথে আপনি সহ আপনার অনেক কাছের বন্ধু-বান্ধবের শারীরিক সম্পর্ক হয়েছে। এখন ঐ মেয়েকে আপনি জীবনসঙ্গী করে নিতে পারবেন?? আর বিবাহ বহির্ভূত শারীরিক সম্পর্কে যদি বাধা না থাকে তাহলেত বিবাহের পরে অন্যের সঙ্গে ঐ সম্পর্কে লিপ্ত হতে কোন বাঁধাই থাকে না। পারবেন এগুলা মেনে নিতে?? যদি পারেন তাহলে আপনি মহান।

    1. ব্যক্তিগতভাবে আমার কোন
      ব্যক্তিগতভাবে আমার কোন সম্যস্যা নেই, তবে আমি মহান নই। বিয়ের মাধ্যমে প্রাপ্ত স্ত্রীর শরীরের মালিকও আমি না। তার ব্যপারে জোড় জবরদস্তিতেও আমি নেই। শরীর তার, সিদ্ধান্তটাও তার হাতে থাকাটাই আমার কাছে অধিক যুক্তিযুক্ত মনে হয়।

      1. পৃথু ভাই আপনার কথা যদি সত্য
        পৃথু ভাই আপনার কথা যদি সত্য হয় তার উপর ছেড়ে দেবেন আপনি বিয়ের পর এই পোস্ট টা তাকে দেখাবেন।

        এবং সে যদি অন্যের সাথে শারিরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয় তখন বুঝবেন।

        1. সে এখনো লিপ্ত হয় নি, তবে আমি
          সে এখনো লিপ্ত হয় নি, তবে আমি তার সাথে এ ব্যপারে বলেছি। সে বলেছে তুমি আসলেই মাথা নষ্ট ম্যান। :ভালুবাশি:

          1. এখানে একটা ব্যাপার আমরা এড়িয়ে
            এখানে একটা ব্যাপার আমরা এড়িয়ে গেছি! আচ্ছা বিয়ে কি?
            আমার মতে একটা কাগুজে চুক্তি যা সৎদের জন্যে বাহুল্য আর অসৎদের জন্যে তামাশা… যে সৎ সে এই চুক্তি না করেও আজীবন একসাথে থাকতে পারবে আর যে লম্পট সে চুক্তি করেও ব্রথেলে যাবে! কিন্তু বউ পরকিয়া করলেই পিটাবে বা তালাক দিবে।।
            এইবার আসি প্রাসঙ্গিক আলোচনায়! আচ্ছা ভাই বলেন তো এই সমাজে ১০০% শিক্ষিত মানুষ হলে আপনার গৃহ পরিচারিকার কাজটি কে করবে? এইটা একটি প্রক্রিয়া যার জন্যে অনেক সমাজ বিজ্ঞানী কাজ করে যাচ্ছেন!! কোন নতুন মতবাদ বা আদর্শের উত্থানের সময় এমন অনেক ক্রাইসিস দৃশ্যমান হবে যা বাস্তবে রাজতন্ত্র থেকে গনতন্ত্রে খাপখাওয়ার মত করে যুগপৎ সমাধান পাবে সমাজ…

    2. এখনও কি আপনি নিশ্চিত হতে
      এখনও কি আপনি নিশ্চিত হতে পারছেন আপনি বা আপনার পাত্রী ১০০% ভার্জিন বা পূর্ব সম্পর্কহীন কিনা?
      আমাদের সমাজ কিন্তু এরিমধ্যে কিছুটা “যৌন স্বাধীনতা” ভোগ করা শুরু করেছে…
      পার্থক্য শুধু আজ লুকিয়ে তখন হবে দেখিয়ে!!!
      এইভাবে উত্তরণ হবে আর সমাধানও হবে।। এমন একটি আবেগি ব্যাপার রাতারাতি সামরিক আইন বা জরুরী অবস্থার ন্যায় আরোপিত হবে না কালব্যাপী পরিবর্তনে হবে…
      তাই সকল সমস্যা আর মূল্যবোধের যুগপৎ সমন্বয়ে এর সমাধানে যাব!!

      1. না, ভার্জিন কি না, খতিয়ে
        না, ভার্জিন কি না, খতিয়ে দেখার প্রয়োজনবোধ করিনি। সে আমার বাচ্চাদের জন্মদাত্রী, আমার সংসারের একজন গুরুত্বপূর্ন সদস্য। তার সাথে আমার বিয়ে হয়েছে বলেই তার শরীরটাকে আমি কিনে নিইনি।
        আমি তাকে এ ব্যপারে খোলাখোলি বলেছি। সে বলে পাগল না কি?

  8. ব্লগে অনলাইনে আজকাল যৌন
    ব্লগে অনলাইনে আজকাল যৌন বিষয়টা ভালোই জমে উঠেছে দেখছি। হয়তো এভাবেই শুরু হবে এই দেশের যৌন ভীতি দূরীকরণ।
    এখানে তর্কালাপে না গিয়ে নিজের মত করে কিছু বলি, প্রথমত আমাদের এই উপমহদেশে বিশেষ করে ভারতীয় অঞ্চল সমূহে যৌন ব্যাপারটা খুবই স্পর্শকাতর আর এর প্রমান হিসেবে দেখা যায় সেক্স বিষয়ে ঘাটাঘাটিতে অনলাইনে পাকিস্তান, ভারত, বাংলাদেশ এগিয়ে আছে অনেকটুকু। এর জন্য আমাদের যৌনভীতিটাই দায়ী।

    খেয়াল করে দেখবেন বাচ্চা ছাগল একটু বড় হলেই সেক্স করার স্টাইলে অন্য ছাগলের পিছে উঠে পড়ে ঠিক তেমনিই আমরাও একটু বড় হলে যৌনাঙ্গের একটা সুড়সুড়িতে উদ্বেলিত হয়ে সেটার পিছনে লেগে পড়ি। যেহেতু আমাদের দেশে এই ব্যাপারটা খুবই গোপন আর সামাজিক দৃষ্টিতে অগ্রহণযোগ্য তাই এটার পেছনে কিশোর বয়স থেকে মানুষের আগ্রহের শেষ নেই। অথচ যদি যৌন শিক্ষা উন্মুক্তভাবে বিস্তার করা যেত তাহলে এই সমাজ যৌনাতঙ্ক থেকে মুক্ত হয়ে যেত।

    এখানেও এও উল্লেখ্য যে অবাধ যৌনাচার কোনভাবেই কাম্য নয়। কেউ হয়তো যা বুঝাতে চাচ্ছে অবাধ যৌনাচার দিয়ে তার মানে নিজ পরিবারের কারো সাথে যৌন মিলন নয়। এটা কোন সুস্থ মানসিকতার লোকের দ্বারা সম্ভবও না। তাই সহনশীল পর্যায়ে এসে মন্তব্য এবং আলোচনা চালিয়ে নিয়ে যেতে সকলের প্রতিই আহ্বান রইল।

    1. মুক্ত যৌন শিক্ষার খেত্রে খুব
      মুক্ত যৌন শিক্ষার খেত্রে খুব একটা দ্বিমত নেই।

      তবে ফ্রি সেক্স বলতে যা বুঝেছি অবাধে যৌন মিলন। কেউ বাধা দিবে না এটা মোটেও কাম্য নয়।

      1. মুক্ত যৌন শিক্ষার খেত্রে খুব

        মুক্ত যৌন শিক্ষার খেত্রে খুব একটা দ্বিমত নেই।

        যাক বাঁচা গেলো। কেননা হেফচুতিয়ারা তো পুরাই দ্বিমত :হাসি: :হাসি: ফ্রি সেক্স মানে আপনার ধারণায় অবাধ যৌন মিলন হলেও আমার দৃষ্টিতে দু’জনের সম্মতি ছাড়া ফ্রি সেক্স কেনো, যেকোন সেক্সই অগ্রহনযোগ্য।
        দুজনের চাহিদা আর ইচ্ছা যদি এক হয় তাহলে করতে আপত্তি কই? এখানে ফ্রি সেক্স মানে বিয়ের আগে অথবা বিয়ে না করে দু’জন ব্যক্তির সম্পূর্ণ ইচ্ছাপ্রকাশের ভিত্তিতে মিলনকেই বোঝানোই হয়েছে।

        একটা উদাহারন দেই, আমার হস্তমৈথুন পছন্দের না অথচ এইদিকে সেক্সের জ্বালায় বাচি না তখন কি করব? নিশ্চয়ই দেয়ালে ঠেকাবো না! আবার এদিকে বিয়ে করার মতোও যোগ্য না তাই বিয়ে করতে পারছি না তখন কি করব?

        স্যার যাই বলুন এটা বিংশ শতাব্দী, এটা ১৪০০ সাল না, আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

        1. হ্যা ভাই এটা বিংশ শতাব্দী
          হ্যা ভাই এটা বিংশ শতাব্দী কিন্তু এটাও ১৪০০ বঙ্গাব্দ। আমরা বাঙ্গালি। ক্ষেত্র বিশেষে দ্বিমত থাকতেই পারে তাই আমি আপনার সাথে ফ্রি সেক্স টপিকে একমত হতে পারছি না।

          যখন ২০০০ বঙ্গাব্দ হয় তবে দেখা যাবে। আমি এত কথা বলছি আমি যে সুযোগ পেলে তার ব্যবহার করব না এর তো গেরান্টি দিতে পরছি না।

          1. আমি এত কথা বলছি আমি যে সুযোগ

            আমি এত কথা বলছি আমি যে সুযোগ পেলে তার ব্যবহার করব না এর তো গেরান্টি দিতে পরছি না।

            :bow: :bow: :bow: :bow:

  9. শুধু দুটো ব্যাপারে বলছি
    শুধু দুটো ব্যাপারে বলছি ।

    প্রথমত , শারীরিক ব্যাপারগুলোতে মানে যৌন সম্পর্ক উদ্ভুত স্বাস্থ্যসমস্যাগুলো কি এতে করে আরো ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়বে না ?

    দ্বিতীয়ত , একটা ছেলে একটা মেয়ের বন্ধু । কিন্তু ছেলেটা মেয়েটাকে বন্ধুত্বের বাইরে শারীরিক সম্পর্কে চাইছে , মেয়েটার ঐ ছেলেটার প্রতি আকর্ষণ নেই কিন্তু অন্য আরেকটা বা আরো কয়েকটা ছেলের সাথে বিছানায় যাচ্ছে । এক্ষেত্রে প্রথম ছেলেটার ক্রোধ প্রবৃত্তি কি তাকে ধর্ষন চেতনায় উদ্বুদ্ধ করবে না ?

    1. একটা ছেলে একটা মেয়ের বন্ধু ।

      একটা ছেলে একটা মেয়ের বন্ধু । কিন্তু ছেলেটা মেয়েটাকে বন্ধুত্বের বাইরে শারীরিক সম্পর্কে চাইছে , মেয়েটার ঐ ছেলেটার প্রতি আকর্ষণ নেই কিন্তু অন্য আরেকটা বা আরো কয়েকটা ছেলের সাথে বিছানায় যাচ্ছে । এক্ষেত্রে প্রথম ছেলেটার ক্রোধ প্রবৃত্তি কি তাকে ধর্ষন চেতনায় উদ্বুদ্ধ করবে না ?

      আমার মনে হয়, যখন শারীরিক সম্পর্কের ব্যপারগুলো ইজি হয়ে যাবে, তখন এমন ঘটার সম্ভাবনা কম। কারণ বঞ্চিত ছেলেটারও কোন না কোন বান্ধবী থাকবে।

      1. দাদা , বোধকরি ব্যাপারটা এমন
        দাদা , বোধকরি ব্যাপারটা এমন না । একই মানুষকে অন্য অনেকে বিছানায় পাচ্ছে কিন্তু ঐ ছেলেটা পাচ্ছে না , ব্যাপারটা হজম করা কঠিন না ? অন্য বান্ধবী থাকলেই বা কী ?? তার তো ঐ মেয়েকেই চাই !!

        আপনার সাথে কোন পয়েন্টেই একমত হতে পারলাম না । মুক্তবাকের চর্চায় শুভকামনা ।

        1. আমি আবারো জাবর কাটবো, এই বলে
          আমি আবারো জাবর কাটবো, এই বলে যে বর্তমানে ছেলেতে মেয়েতে বন্ধুত্ব হচ্ছে হরহামেশাই। তাই বলে কি বান্ধবীকে নিয়ে টানাটানি হয়?

          বর্তমানের বন্ধুত্বে হাত ধরাধরি পর্যন্ত জায়েয, পরে হয়ত বিছানা পর্যন্ত।

  10. শারীরিক ব্যাপারগুলোতে মানে

    শারীরিক ব্যাপারগুলোতে মানে যৌন সম্পর্ক উদ্ভুত স্বাস্থ্যসমস্যাগুলো কি এতে করে আরো ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়বে না ?

    হ্যা, এটা ঘটার সম্ভাবনা আছে। আর এ কারনেই তো যৌনতা ব্যপারটাকে উন্মোক্ত রাখার দরকার। তাহলে, সচেতনতা তৈরী হবে।

  11. আমার কোন কথার কাউন্টার আসে
    আমার কোন কথার কাউন্টার আসে নি। আসার কথাও না…
    যা হোক!! আপনার রূপরেখার আশায় থকালাম!!
    তারপর না হয় নতুন করে ভাবা যাবে!!
    তবে রূপরেখা তৈরি করার আগে একটা ব্যাপার লক্ষ্য রাখতে পরামর্শ দিব…
    আপনি যথারীতি(অর্থাৎ তাবৎ জীবনবিধানের মত-যেখানে ১০০% পুরুষ মিলেই ১০০ মানুষের জীবন বিধান রচনা করে…) পুরুষালি দৃষ্টিকোন থেকে কিছু লিখাবেন না!! আপনি আগের লিখায়ও সতী শব্দটাকে পশ্রয় দিয়ে তার ব্যাখ্যা দিয়েছেন… আর শব্দটি ফ্রি সেক্স না বলে “যৌন স্বাধীনতা” বলুন!
    আমি মানবতার স্বাধীনতা চাই–
    কেউ জন্মের পর কোন মতবাদে বড় হয়ে অন্য মতবাদকে যথাযথভাবে বিচার করতে পারে না প্রত্যাশিতভাবে!! আর আমরা সবাই বড় হয়েছি কট্টর একটি পুরুষতান্ত্রিক সমাজে… তাই লিঙ্গ নিরপেক্ষ থেকে কিছু করবেন তবেই অনেক ভাল কিছু হবে…

    1. ধন্যবাদ পরামর্শের জন্য।
      ধন্যবাদ পরামর্শের জন্য। হেল্পের জন্য আপনাকে নক করতে পারি। দরজা খোলা থাকবে আশা করি।

      1. ফেসবুক তো আছেই…
        আর আমার

        ফেসবুক তো আছেই… 😉
        আর আমার পরামর্শ আপনার কাজে আসতে পারে জেনে ভাল লাগল…
        পুঁজিবাদের যাঁতাকলে নিষ্পেষণের বাইরের সময়টুকু আপাতত ব্লগেই দেই!
        ঢাকা শহরের যে অবস্থা এইটাই শ্রেয়তর মনে হয়!!
        আপনাকে ধন্যবাদ… :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা:
        আপনার দেয়া রূপরেখার পর আমিও কিছু একটা লিখব ভাবছি!!

  12. আচ্ছা আমার মনে হয় এই বিষয়টি
    আচ্ছা আমার মনে হয় এই বিষয়টি নিয়ে এভাবে কথা বলাটা প্রয়োজনহীন কারণ হাত ধরাটা যেমন সমাজ মেনে নিতে পেরেছে আরো অনেক কিছুই পারবে তবে তা সমাজ তার নিজ গতিতে ।

    1. হ্যা, একটা সময় মেনে নেবে।
      হ্যা, একটা সময় মেনে নেবে। সভ্যতার বৈশিষ্ট্যই এটা। তাই বলে আলোচনা করে একটা সুন্দর পথ নির্মান করাটা কি দরকার না?

  13. পুরাপুরি দ্বিমত পোষণ করছি
    পুরাপুরি দ্বিমত পোষণ করছি ।
    আচ্ছা পোস্ট এ আপনি বার বার বলেছেন – ”আপনি পড়াশুনা কম করেছেন । ” এটা বলে পরবর্তী যুক্তি প্রদর্শন করেছেন । প্রশ্ন উঠবে এটা জানানোর মাঝে সার্থকতা কি এবং কেন ?

    মেয়েদের সেক্সের ব্যপারে মেয়েরা প্রকৃতিগতভাবেই সঙ্গী নির্বাচনের ক্ষেত্রে যত্নশীল, তার মানে কি এই দাড়ায় যে, তারা বহুগামী না? পরকিয়ার ব্যপারটাতে তো পুরুষের লালসা আর নারীর প্রয়োজন এবং আগ্রহটাই দেখি বেশি থাকে।

    এই ধারনা কি আপনি আপনার বাস্তবতা. লব্ধ জ্ঞান থেকে পেয়েছেন ?
    exception can’t be an example bro . কইজন এর এমন বহুগামিতার কথা আপনি জানেন ?
    আপনি বলেছেন

    ”যা, আমি ব্যক্তিজীবনে অনেক দেখেছি, দু থেকে তিনটা পরকিয়া, কাজের বুয়ার সাথে মালিকের, মালকিনের সাথে দাড়োয়ান কিংবা ড্রাইভারদের সম্পর্কগুলো খুব কাছ থেকে দেখেছি। খুব বেশি দেখেছি বলেই আমার কাছে মনে হয়েছে, সমাজের অধিকাংশ মানুষ তথাকথিত অবৈধ কাজে জড়িত। আর তাই, আমার এ কথাগুলো।”

    প্রশ্ন ওঠে এগেইন কইজন ? হ্যাঁ ? কতগুলা?
    কতটুকু উপলব্ধির ক্ষমতা?

    এক্সকিয়ুজ মি / আশা করি আপনার বোন/ ভবিসশত মেয়ে কে বিবাহ বহির্ভুত শারীরিক সম্পর্ক কেন জরুরী এই বিষয়ে শিক্ষা দিবেন !!!!! আশা করি ।

    1. হ্য, ভাই আমি ব্যক্তিগতভাবে
      হ্য, ভাই আমি ব্যক্তিগতভাবে তাই চেষ্টা করবো।
      আমার দুটি ছেলে আছে। তাদেরকে সেভাবেই গড়ে তোলার চেষ্টা করবো।

      আমার প্ল্যান আছে যখন এরা ১২ কিংবা ১৩তে পা রাখবে তাদেরকে ব্যবহারিক জ্ঞাণ দেয়ার চেষ্টা করবো।
      যদি তখন কোন মুক্ত মনের নারী পাই তো ওয়েল এন্ড গুড, আদার অয়াইজ কোন পতিতার সরনাপন্ন হবো>

      একটা আফসোস আমার একটা মেয়ে নেই। তাহলে সমাজের সাথে যুদ্ধটা জমতো আরো। দেখিয়ে দিতে পারতাম, শারীরিক স্বতীত্ব ভণ্ডামী মাত্র।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

52 − 43 =