হিজাবপ্রেমী

আমার প্রোফাইলে এসে যে সকল সুন্দরী গর্দভ নারীরা ‘Hijab is my choice’ ও ‘Borqa is my rights’ বলে চিৎকার করে থাকে, তারাই এখন স্বেচ্ছায় আইএসের সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে অংশগ্রহণকারী যৌনদাসী বাঙলাদেশী বংশদ্ভূত ব্রিটিশ শামিমা বেগমকে আরেকবার সুযোগ দেওয়ার জন্য কান্নাকাটি শুরু করেছে। বর্তমানে হিজাব ইস মাই চয়েস বলে সারাদিন চিৎকার করা বাঙাল অশিক্ষিত মুসলমানগুলো একজন নারী জঙ্গির সমর্থনে মানবতা ভাসিয়ে ফেলছে।

ফেসবুকে প্রায়ই দেখা যায় যে, তিন চার বছর বয়সী শিশুকে হিজাব ও বোরকা পরিয়ে তাদের বাবা মায়েরা ছবি পোস্ট করে অদৃশ্য সোয়াব আদায় করতে। সবাই বলতে থাকে, মাশাল্লাহ মাশাল্লাহ! এই শিশুরাই আবার ১৫ বছর বয়সী হয়ে চিৎকার করে বলতে থাকে, হিজাব ইস মাই চয়েস। ইসলামিজঙ্গিবাদে অধিকাংশ নারীই জানে না যে হিজাব পরা তাদের নিজস্ব চয়েস কোনদিনই ছিল না। ধর্মতান্ত্রিক সমাজের নিম্নমানের মূল্যবোধ ও নৈতিকতা তাদের মস্তিষ্কে এমন বিষ ঢেলে দিয়েছে যে তাদের চিন্তাশক্তি শিশুকাল থাকা অবস্থাতেই লোপ পেয়েছিল।

Image result for হিজাব

এতদিন যারা কথায় কথায় বলতে থাকতো ‘হিজাব ইস মাই চয়েস’ তারা কেন এখন একজন জঙ্গিকে নতুন করে সুযোগ দেওয়ার প্রস্তাব তুলছেন? ১৫ বছর বয়সী একটি মেয়ে যখন চিৎকার করে বলতে থাকে বোরকা ইস মাই রাইটস, তখন তাকে সমর্থন দেওয়ার জন্য কোটি কোটি অশিক্ষিত গর্দভেরা অধিকার নিয়ে সোচ্চার হয়ে থাকে।

এখন আবার, ১৫ বছর বয়সে শামিমা বেগম নামের যে মেয়েটি স্বেচ্ছায় আইএসের যৌনদাসী হওয়ার উদ্দেশ্যে গিয়েছিলো, তার ক্ষেত্রে বলা হচ্ছে- মেয়েটি ছোটো ছিল তাই ভালোমন্দের পার্থক্য বুঝতে শিখে নি। আদতে ইসলামিসন্ত্রাস চালিয়ে যাওয়ার জন্যই তার সমর্থনে অন্ধবিশ্বাসীরা সোচ্চার হয়ে উঠছে। ইসলাম হচ্ছে হায়ফেস। এই হায়ফেসের সামনে যে ব্যক্তিই পড়বে তার আর কোন রক্ষা নেই।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 38 = 40