ইতিহাসের পাতায় লেখা আছে ঘৃণা করো এরশাদ !

 

জিয়াউর রহমানের হাত ধরে সংবিধানে বিসমিল্লাহ ও এরশাদের হাতে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের খৎনা হয়ে রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম সংবিধানে যুক্ত করে অঘোষিতভাবে অমুসলিমদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক বানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরশাদ সংবিধানের সংশোধনী করে ১৯৭২ সালের সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা বাতিল করে ইসলামকে বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম করা সত্ত্বেও পরবর্তীকালে আওয়ামী লীগ তাদের ১৯৯৬ এবং ২০০৯ সালের সরকার আমলে তা বাতিল না করে আজ পর্যন্ত বহাল রেখেছে! এছাড়া ১৯৭১ সালের পর পাকিস্তানি আমলের ‘শত্রু সম্পত্তি আইন’ বাতিল না করে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার তার নাম রেখেছিল ‘অর্পিত সম্পত্তি আইন’। এসবই হচ্ছে নির্বাচনী মাঠে আওয়ামী লীগের সাম্প্রদায়িক রাজনীতি। বর্তমান সরকার যেহেতু মদিনা সনদে দেশ চালাচ্ছে সেহেতু এটি স্পষ্টত যে ১৯৭২ এর সংবিধানে আওয়ামীলীগ নিজেও ফিরে যেতে ইচ্ছুক নয়।
অথচ, এরশাদের মরণ হয়েছে নাকি আজ ! 
বাপ ঠাকুরদার মুখে শুনেছিলাম, পাপের শাস্তি এ জনমেই ভোগ করে যেতে হবে । কিন্তু এরশাদের জীবন দেখে হয়তো মানুষের সে ধারণা মিথ্যে বলেই গণ্য হবে ।

ভারতের ডান উগ্রপন্থি গ্রুপ আর.এস.এস-এর নেতৃত্বে ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ আঘাত করে । বারবি মসজিদে আঘাত আসার আগেও বাংলাদেশে বাবরি মসজিদ ধ্বংস করার গুজব রটিয়ে অ-মুসলিমদের উপর হামলা করা হয়।
১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বরের পর সারা দেশে বড় আকারে সাম্প্রদায়িক তাণ্ডব শুরু হয়। ৬ ডিসেম্বর থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৫ হিন্দু নারী-পুরুষ খুন হয়, ২৬০০ উপর নারী ধর্ষিতা হয়, ১০ হাজার মানুষ আহত হয়, ২ লক্ষ মানুষ গৃহহীন হয়, ৩৬০০ অধিক মন্দির জ্বালিয়ে দেওয়া হয়, ৪০ হাজার বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া ও দখল করা হয় এবং দশ হাজারের উপর হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের দোকান জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। এটি শুধু ১০ দিনের চিত্র। এর মানে এই নয় যে দশ দিন পর সব স্বাভাবিক হয়ে গেছে কিংবা আর কোন সাম্প্রদায়িক হামলার হয় নি। পরবর্তীতে হামলা হয়েছে ধীরে ধীরে বিচ্ছিন্নভাবে। ঢাকা শহরে বড় আকারে হামলা হয় ৬ ডিসেম্বর ও ৭ ডিসেম্বর। ডানপন্থী ইনকিলাব পত্রিকা একটি নিউজ করে; ‘বাবরি মসজিদ ঘটনায় ঢাকার হিন্দুদের মিষ্টি বিতরণ!’ পরের দিন ভুল সংবাদের জন্য তারা ক্ষমা চায় কিন্তু যা হওয়ার এবং যে উদ্দেশ্যে এই সংবাদ করা হয়েছিল তা ঐ রাতেই সফল হয়। রাতের মধ্যে সকল হিন্দু পল্লীগুলো’তে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। ভুল সংবাদের জন্য ইনকিলাব পত্রিকার কোন বিচার কিংবা সরকার থেকে কোন মামলা কোনটাই হয়নি। বাংলাদেশে মিরসরাই, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, ভোলা, মানিকগঞ্জ, চিটাগাং, সুনামগঞ্জ ইত্যাদি জায়গায় বড় হামলার ঘটনা ঘটে। অদ্ভুত বিষয় হল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া টিভি’তে ভাষণ দেওয়ার সময় ভারতের বাবরি মসজিদ পুনরায় তৈরি করার আহবান জানালেও নিজ রাষ্ট্রের মানুষগুলোর অত্যাচারের কথা ও নিজের প্রশাসনের ব্যর্থতার কথা চেপে যান। বরং ভাষণে পরোক্ষভাবে বুঝিয়ে দিলেন যে; এসব হামলার ঘটনায় রাষ্ট্রীয়ভাবে কাউকে গ্রেফতার কিংবা মামলা হবে না। তাই পরবর্তীতে অমুসলিমদের উপর হামলার তীব্রতা লক্ষ্য করা যায়। পাহাড়েও বাঙালি সেল্টারা হামলা শুরু করে। সেখানে হিন্দু ধর্মাবলম্বী না থাকলেও তারা বৌদ্ধদের উপর হামলা করে। যেমনটি ১৯৭১ সালে পাকিস্তান সেনা বাহিনী সাঁওতালদের হিন্দু বিবেচনা করে গণহত্যা চালিয়েছিল সেই সম্প্রদায়ের উপর। সাম্প্রদায়িক হামলার গুজব রটিয়ে ১৯৯২ সালের এপ্রিল মাসে পাহাড়ে বাঙালি মুসলিমদের হামলায় ৬০০ আদিবাসী মারা পড়ে, ৪৫০০০ বৌদ্ধ আদিবাসী চট্টগ্রাম পাহাড় ছেড়ে ভারতের রিফিউজি ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়। মজার বিষয় হলে মুসলিম সম্প্রদায় থেকে হামলার ঘটনায় আবার রাষ্ট্র-পক্ষ আসামী হিসেবে অমুসলিমদেরই গ্রেফতার করেছে। বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও মিডিয়া বিষয়টি চেপে যাওয়ার ফলে আন্তর্জাতিকভাবে বিষয়টি প্রকাশ হয়নি!!!
আজ ২০১৯ এ এসেও যদি বলতে হয় , বাংলাদেশে বরাবরই সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে৷ আর এখন মূলত রাজনৈতিক অস্থির অবস্থা এবং নীতিহীন রাজনীতি এর জন্য দায়ী৷ বাংলাদেশ যতই তার অসাম্প্রদায়িক চরিত্র থেকে সরে যাচ্ছে, ততই ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা-নির্যাতন বাড়ছে৷”
তাঁর মতে, ‘‘শাসক দলের পরিচিতি বা সমর্থন ছাড়া সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটিয়ে পার পাওয়ার সুযোগ খুবই কম৷ নেই বললেই চলে৷ তাই এই ধরনের অপরাধ যারা করে, তারা সব সময়ই রাজনৈতিক দলের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে থাকতে চায়৷ যেহেতু এই মূহূর্তে বাংলাদেশে শাসক দলের বাইরে অন্যান্য রাজনৈতিক শক্তির তেমন কোনো অবস্থান নেই বললেই চলে, এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে সরকারি দল বা সরকারি দলের মধ্যে ঢুকে দুষ্কৃতকারীরা বা ওই দলের নেতা-কর্মীরা এ ধরনের ঘটনা ঘটতেই পারে৷ এটা নীতিহীন রাজনীতির ফল৷”

রাষ্ট্রের খৎনা থেকে মুক্তি পাবে বলে আশা করেছিলাম বর্তমান সরকারের উপর । কিন্তু তাও দেখেছি সব শিয়ালের এক রা !!  চলতি বছরের প্রথম চার মাসে (জানুয়ারি থেকে এপ্রিল) বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর ২৫০টি হামলা, নির্যাতন ও হত্যাসহ নানা ধরনের হিংসাত্মক ঘটনা ঘটেছে৷ ২০১৮ সালে এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে ৮০৬টি৷ তাই এটা স্পষ্ট যে, চলতি বছরের শুরু থেকেই সংখ্যালঘু নির্যাতন বাড়তে শুরু করেছে৷

তাদের দেয়া হিসাব অনুযায়ী, এই চার মাসে হত্যার শিকার হয়েছেন কমপক্ষে ২৩ জন৷ হত্যাচেষ্টার শিকার হয়েছেন ১০ জন৷ হত্যার হুমকি পেয়েছেন ১৭ জন এবং শারীরিক আক্রমণের শিকার হয়েছেন ১৮৮ জন৷ ধর্ষণ এবং যৌন হয়রানির শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেছেন ৩ জন এবং সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ৫ জন৷ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাড়ি ঘরে লুটতরাজের ঘটনা ঘটেছে ৩১টি, বাড়ি ঘর ও জমি জমা থেকে উচ্ছেদ হয়েছেন ১৬২ জন, দেশত্যাগের হুমকি পেয়েছেন ১৭ জন৷
১০৪ জন ধর্মান্তরিত হয়েছেন, ২৯টি মন্দির ও মঠে হামলা হয়েছে, ৪৩টি মুর্তি ভাঙচুর করা হয়েছে এবং জবর দখলের ঘটনা ঘটেছে ৩৮টি৷ এর বাইরে অপহরণ, ধর্মস্থান দখল, মূর্তি চুরির মতো ঘটনারও অভিযোগ করা হয়েছে৷

একটি বিশেষ সুত্রে জানা যায় ২০১৬ সালে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর সহিংসতার ঘটনা ঘটেছিল ১,৪৭১ টি৷ ২০১৭ সালে তা কমে হয়েছিল ১,০০৪টি৷ ২০১৮ সালে আরো কমে ৮০৬টি৷ কিন্তু চলতি বছরের শুরুতেই তা আবার বাড়তে শুরু করেছে৷

তাই
ইতিহাসের দিকে তাকিয়ে ঘৃণা ভরে বলছি ,এরশাদের মৃত্যুতে আমার শোক নেই আছে শুধু ঘৃণা ঘৃণা আর ঘৃণার পাহাড় !!

টিটপ হালাদর 

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

9 + 1 =