একটি সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে বোকার স্বপ্নভঙ্গ!

অনেকদিন থেকেই হুমায়ুন আজাদের একটা বই শুরু করেছি “এভাবে মৃত্যুর জন্য তোমার জন্ম হয়নি”। বাঙ্গালী লেখকদের মধ্যে আমার আইডল তিনিই, তাই এটাকে প্রভাতপাঠ্য হিসেবেই বেছে নিয়েছি। যাই হোক্ প্রতিদিনের মত আজও স্নান-ঠিফিন সেরে অফিসে আসার জন্য রওনা দিলাম।

কিন্তু বাইরে বেরিয়েই একটা আবাক বিষয় লক্ষ্য করলাম; সকাল থেকেই কেন যেন মনে হচ্ছে শহরটাতে মানুষের আনাগোনা অন্যদিনগুলোর তুলনায় অনেকটা কম! সকাল গড়িয়ে দুপুর এলো। বেলা বাড়তেই বিষয়টা আরো স্পষ্ট হলো- সত্যিইতো! অনেক মানুষকেই দেখা যাচ্ছে না; প্রতিদিন যাদের আনাগোনা এ রাস্তাটাতে তারাতো আজ নেই। অনেক প্রতিবেশী বন্ধুদেরও দেখা নেই। গেলাম সদর রোড, একি! বিবির পুকুর পাড়ের সেই ভিড়ও নেই আজ! অনেক অফিসও বন্ধ, দোকানগুলোও অনেকটা বন্ধ, আজ কি সরকারি বন্ধ? নাহ তাওতো নয়, তবে! ব্যাংকে লোকজন অনেক কম, অফিসার আর গ্রাহকশুন্য ব্যাংকগুলোও বসে আছে! ভাবনায় পরে গেলাম, কি হলো, কোন সমস্যা?

কিন্তু আরো অবাক করার বিষয় হলো যারা কখনো পাশ দিয়ে হেটে যাবার সময়ও কথা বলতো না। তারা হঠাৎ হাত বাড়িয়ে কুশল বিনিময় করছে। খোঁজ নিচ্ছে আমার, সব ঠিক আছে তো! চিন্তা আমার বেড়েই চলছে। রাস্তার প্রতিদিনের মত এত রিক্সা-গাড়িও নেই আজ। মনে হচ্ছে, কেমন একটা নিশ্চুপ শহরে চলে এলাম, কিন্তু এ জায়গাতো আমার চিরচেনা সেই শহর। এমন এলামেলো ভাবনার মাঝেই হঠাৎ করে ফোনটা বেজে উঠলো; একটা পরিচিত নাম্বার দেখা যাচ্ছে। রিসিভ করতেই ওপাশের মানুষটা বলে উঠলো, “খবর দেখেছিস! টিভিটা অন কর, নিউজ দেখ”। কেমন একটা ধাক্কা লাগলো, নতুন করে কি হয়েছে আবার?

ছুটলাম বাড়ির দিকে, এসে টিভিটা অন করতেই দেখলাম, দেশের সব মানুষ নেমেছে ঢাকার রাজপথে; তারা প্রতিবাদ করছে চলমান দূর্নিতী, ধর্ষন, বিচারহীনতা আর সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিরুদ্ধে। মানুষগুলো চিৎকার করে বলছে-

“হুমায়ুন আজাদ হত্যার বিচার চাই”

“অভিজিৎ রায় হত্যার বিচার চাই”

“নাস্তিকরা দেশ ছেড়েছে কেন? তাদের ফিরিয়ে আনো”

“আমার ভাই গোবিন্দ দেশ ছেড়েছে কেন?”

“পূর্নিমা ধর্ষনের বিচারই চাই”

এমনই সব শ্লোগানে-শ্লোগানে রাজপথ কম্পিত। এদেশ থেকে ভিটেফেলে চলে যাওয়া সংখ্যালঘুদের জন্য রাস্তায় বসে কাঁদছে এদেশের কোটি-কোটি মানুষ। তারা সংখ্যালঘুদের ফিরিয়ে এনে তাদের সম্পত্তি ফিরিয়ে দেবার জন্য সরকারের সাহায্য চাইছে। তারা শত্রু সম্পত্তি আইন বাতিল চাইছে। এসব দেখতে-দেখতে আমি আবেগে আত্মহারা হয়ে পরেছি। গিন্নিকে ডেকে বলছি- দেখ আমার সোনার বাংলা।

এমন সময়  চোখটা গেল টিভির স্ক্রলের দিকে- “সরকার আগামী ১৫ দিনের জন্য দেশের সব সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মরত সকলকে ছুটি দিয়েছেন এবং বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠানগুলোও বন্ধ রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন। যেসব নেতা, আমলা, ব্যবসায়ী সহ সকল ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলো দেশের সংখ্যালঘুদের জমি-সম্পদ দখল করে রেখেছে; তাদেরকে সেগুলো দ্রুত সংখ্যালঘুদের (যারা সম্পদ ফেলে রেখে গেছেন) এদেশে ফিরিয়ে এনে তাদের সম্পত্তি ফিরিয়ে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন। যারা সরকারের এ নির্দেশ মানবেন না তাদের বিরুদ্ধে কঠিন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

সেই চ্যনেলটা পরিবর্তন করে অন্য একটা চ্যানেলে আসলাম। সেখানে দেখলাম রাষ্ট্রপ্রধান তখন দেশে নেই, লন্ডনে একটা অনুষ্ঠানে তিনি বলছেন- “আমরা এদেশে জাতিভেদে বিশ্বাস করি না। এদেশের মানুষ এক জাতি- বাঙ্গালী। তাইতো সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্মও আমরা উঠিয়ে দিয়েছি; কারন এ দেশ সবার। এ দেশের মানুষ সব অসাম্প্রদায়িক; তার উদাহরন আপনার নিজেরাই দেখছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প যেই হোক তাকে আমরা ভয় পাই না। সংখ্যালঘুরা ফিরে আসুন এদেশ আপনার-আমার সকলের।”

আমি তখন ভাবছি এই অসময়ে এতবড় একটা কাজ কি করে করবে এই দেশের মানুষ? আমাদের বাড়ির পাশের হারান কাকাতো শুনেছি ওদেশে চলে যাবার পর স্টেশনের পাশে না খেতে পেয়ে মারা গেছেন। সুনীল, বরুন, তপন, হরি, কৃষ্ণ জ্যাঠা……….. এত্তগুলো মানুষকে এই ভীরের মধ্যে এরা খুঁজে পাবে? কি জানি! ওদের না পেলেও হয়ত ওদের উত্তরসূরীদের পাবে! তাদের হয়ত ফিরিয়ে আনবে। তাদেরকেই ফিরিয়ে দেয়া হবে তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি। এসব আবোল-তাবোল ভাবতে ভাবতেই দিনটা কেটে গেল আমার।

এর কদিন পরেই ফোন এলো ওপার থেকে, ফোনটা পরিচিত ছিলো না কিন্তু স্বরটা যেন খুব চেনা- “কিরে কাজলা তোরা যে এত চিৎকার করলি, দেখ এবার; দিনতো পাল্টে গেছে- পাল্টেছে মানুষও। আমাকে নিতে এসেছে জয়নাল মোল্লা। খুব কেঁদেছে, বলছে দাদা বড্ড ভুল হয়ে গেছে- চলো এবার নিজের ভিটেতে”

ঘুম থেকে আমি একটু দেরী করেই উঠি কিন্তু, হঠাৎ ঘুমটা ভেঙ্গে গেল মেয়ের ডাকে- “বাবা ওঠ তোমার ফোন বাজছে”। কেমন একটা অস্বস্তিকর পরিস্থিতি। ফোনটা রিসিভ করতেই ওপাশ থেকে বলছে “ঘুম ভাঙ্গছে! এবার ওঠ, প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের দুউডা মামলা হইছে- আর দরকার নাই এবার থাম। যস্মিন দেশে যদাচার মনা।”

নিজের অজান্তেই চোখদুটো আমার ছলছলিয়ে উঠলো…

 

 

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “একটি সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে বোকার স্বপ্নভঙ্গ!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

25 + = 26