আদর্শ প্রেমিক

আমার এক প্রাক্তন প্রেয়সী আমাকে বলল, ফেসবুকে তোমার ব্যঙ্গাত্মক ছোট গল্পগুলো পড়ি আর উচ্চস্বরে হাসি। তুমি কি এখনো কার্টুন লেখো?

কার্টুনের কথা শুনেই আমার মনে পড়লো, এই সেই বিখ্যাত-কুখ্যাত প্রাক্তন, যে আমার জীবনটাকে সাময়িক সময়ের জন্যে কার্টুন বানিয়ে দিয়েছিল। একদিন খুব আবেগপ্রবণ হয়ে বলেছিল, শুধু তাকে ভালোবাসলেই চলবে না, বরং তার বাবা, মা, বড় বোন ও ছোট বোন, খালা-খালু, মামা-মামী, চাচা-চাচী, দাদা-দাদী, নানা-নানী, চৌদ্দ গোষ্ঠীকে ভালোবাসতে হবে!

জন্মের পর থেকেই আমার স্বপ্ন ছিল আদর্শ প্রেমিক হওয়ার। যদি প্রেম পেশা হিশেবে অন্তর্ভুক্ত হত, তাহলে আজকে আমার কোটি কোটি টাকা থাকতো।

একদিন আমার এই প্রাক্তন প্রেয়সী বলল, আজ থেকে তোমার ডিউটি আমার পরিবারের সকল সদস্যের খোঁজখবর রাখা।

আমি খুব নিখুঁত ও দক্ষতার সাথে প্রেমের পাশাপাশি চৌদ্দ গোষ্ঠীর দুঃখ কষ্ট যন্ত্রণা ভাগাভাগি করি। খুব কম সময়ের মধ্যেই সকলের হৃদয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করে ফেলি। এবং বোধ করি, এই জনপ্রিয়তা ভয়ংকর, কারণ এই চৌদ্দ গোষ্ঠীর অনেকেই আমাকে নানাভাবে চাইতো।

একদিন, এই প্রাক্তন প্রেয়সীকে বলি, আমার মনে হচ্ছে তোমার ছোট বোন আমাকে ভালোবাসে।
প্রেয়সী বলে, প্রাউড অফ ইউ।
আমি প্রেয়সীকে বলি, তুমি আসলে ব্যাপারটা বুঝতে পারছ না। তোমার বোন আমাকে তোমার মতো করেই চাইছে।
প্রেয়সী চিৎকার করে। আর বলে, খবরদার, আমার বোন সম্বন্ধে পিঁপড়ে সমানটুকু অপবাদ দিবে না।
আমি চুপ থাকি। আদর্শ প্রেমিকেরা নিকৃষ্ট গ্রন্থের মতই প্রেয়সীর কথা মেনে চলে।

একদিন প্রেয়সীর ছোট বোন বলে, ভাবীর নাভির নিচে দাবি কথাটি শুনেছ? আর আমি তো শালী………
আমি ভ্রু কুঁচকে তাকাই।
প্রেয়সীর ছোট বোন আমাকে কিছু একটা দেখায়। আমার চোখ অন্ধকার হয়ে যায়।
আমি বলি, আদর্শ প্রেমিকেরা শুধু কল্পনা করে। বাস্তবে কিছু করে না।
প্রেয়সীর ছোট বোন বলে, সমুদ্রসৈকতের বালি সকলেই মুষ্টিবদ্ধ করতে চায় আর নোনা জল পান করতে না পারলেও পরখ করতে চায়।

আমি তার আধ্যাত্মিক কথার অর্থ বুঝতে পারি।
বলি, আমি আদর্শ প্রেমিক, এক নারীতে বিশ্বাসী, কোন লোভ আমাকে ছুঁতে পারবে না।

একদিন প্রেয়সীর মামা আমাকে বলে, আমি সব খাই।
আমি জিজ্ঞেস করি, শূকর খান নাকি মদ খান?
মামা বলেন, ব্যাটা বলদ, আমি নারী খাই, পুরুষও খাই।
আমি আঁতকে উঠি। উঠে দাড়াই।
সে আমার হাত ধরে। তার মুখটা দেখে আমার ভয় লাগে।
আমি বলি, আমাকে ছেড়ে দিন, ছেড়ে দিন…

একদিন আমি উপলব্ধি করতে পারি যে, আদর্শ প্রেমিক/ স্বামী কথাটা আদর্শ স্ত্রীর মতই পুরুষতান্ত্রিক। অর্থাৎ, অমন সম্পর্ক বা অমন অবস্থানটিতে কথিত সম্মান আছে, কিন্তু আসলে গোয়াল ঘরের গরুর মতই অবস্থান। যতটা ভালোবাসা থাকে তার থেকেও বেশি থাকে আশেপাশের মানুষের সমালোচনার আতংক। আর কিছুটা ছেড়ে যাওয়া ও হারানোর ভয় বা মায়া।

1
Leave a Reply

avatar
1 Comment threads
0 Thread replies
0 Followers
 
Most reacted comment
Hottest comment thread
1 Comment authors
magfur Recent comment authors
  Subscribe  
newest oldest most voted
Notify of
magfur
পথচারী
magfur

গল্পটা দুঃখের না সুখের এখনও ফারাক করতে পারছি না আবার হাসিও থামাতে পারছি না।