ধর্মীয় জাতীয়তাবাদের কোন সীমারেখা নেই- প্রসঙ্গ বাবরি মসজিদ/মন্দির

বাবরি মসজিদ ভেঙে আইন ভাঙা হয়েছে। অযোধ্যা মামলার রায়ে এমনই জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।আজীবন শুনে এসছি বাবরি মসজিদ , বাবরি মসজিদ !! যাহোক,এখন থেকে অভ্যেস করতে হবে রাম মন্দির । আচ্ছা এমন যদি বলি, আল্লা আর রামের বসবাসে রাম এগিয়ে গেলো দীর্ঘ বছর পর ।
যাক, প্রায় ২৯ বছর পর অযোধ্যা মামলার মীমাংসা করল সুপ্রিম কোর্ট। বিতর্কিত জমিতে রাম মন্দির তৈরির নির্দেশ দিয়ে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের হাতে মসজিদ তৈরির জন্য আলাদা করে ৫ একর জমি দান করার নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত। একই সঙ্গে তিন মাসের মধ্যে যেন সেই জমিতে মন্দির তৈরি হয় তার দেখার দায়িত্ব কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে দিয়েছে বিচারপতিদের বেঞ্চ।
ভাবাযায়, ১৯৪৯ সালের ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাবরি মসজিদের জায়গায় নমাজ পড়া হয়েছে। সেবছরই ২২ ও ২৩ ডিসেম্বর রাতে বাবরি মসজিদে রামের মূর্তি স্থাপন করা হয়। তারপর সেখানে আর কোনও প্রার্থনা হয়নি। ১৯৩৪ সাল থেকেই রাম ভক্ত হনুমানদের কাছ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মসজিদটি। ১৯৯২ সালে চূড়ান্ত ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই ঘটনা একেবারেই হনুমানদের তাণ্ডব ছিলো তা সে দেশের আদলত জানিয়েছে । এ ক্ষেত্রে ধন্যবাদ দেয়াই যায় ।

শুরু করা যাক একটি কবিতা দিয়ে —
অদ্ভুত আঁধার এক এসেছে এ-পৃথিবীতে আজ,
যারা অন্ধ সবচেয়ে বেশি আজ চোখে দ্যাখে তারা;
যাদের হৃদয়ে কোনো প্রেম নেই – প্রীতি নেই – করুণার আলোড়ন নেই
পৃথিবী অচল আজ তাদের সুপরামর্শ ছাড়া।
যাদের গভীর আস্থা আছে আজো মানুষের প্রতি
এখনো যাদের কাছে স্বাভাবিক ব’লে মনে হয়
মহত্‍‌ সত্য বা রীতি, কিংবা শিল্প অথবা সাধনা
শকুন ও শেয়ালের খাদ্য আজ তাদের হৃদয়।

-জীবনানন্দ

ধর্মীয় জাতীয়তাবাদের কোন সীমারেখা নেই। বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় মানুষ মঙ্গল গ্রহে বসবাস করার সাহস দেখাচ্ছে। হয়তো একদিন মানুষ সেখানে মানব বসতিও গড়বে। ধারণা করি, সেখানে কোন সাম্প্রদায়িক ঘটনা হলে তার প্রতিক্রিয়া হবে ভবিষ্যৎ পৃথিবীতে! ভারতে কংগ্রেসের ব্যর্থতায় বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর ধর্মীয় ফ্যাসিজম বৃদ্ধি পেয়েছে। সেখানকার অনেক মানুষ এর প্রতিবাদ করছে। যেমন-লেখকরা জাতীয় পুরষ্কার বর্জন করছেন, পরিচালকরা পুরষ্কার ফিরিয়ে দিচ্ছেন। এর মাধ্যমে আমরা কিছুটা হলেও রাষ্ট্রের উপর সাধারণ মানুষের চাপ প্রয়োগ তা দেখতে পাই। অথচ একই বিষয় বাংলাদেশে হলেও এখানে রাষ্ট্রে ভিন্ন-সম্প্রদায়ের উপর হামলার কথা স্বীকার করছে না, সংসদে এই নিয়ে কোন আলোচনাও করছে না, লেখক-বুদ্ধিজীবী সবাই বালুতে মাখা গুজে বসে আছেন।

ভারতে বাবরি মসজিদ ভাঙ্গা নিয়ে ১৯৯২ সালের ঘটে যাওয়া ঘটনা আশাকরি বাংলাদেশের মানুষ বিশেষ করে অমুসলিমরা ভোলে’নি । ভোলার কথাও না ।
তাই আজ ভয় হচ্ছে । আগামীকাল অমুসলিমরা সুন্দর জীবন পাবে তো !
বাবরি মসজিদের ভাঙার গুজবে এবং বাবরি মসজিদ ভাঙার পর ঠিক কতো মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন, খুন হয়েছেন কিংবা কতো নারী নির্যাতিত হয়েছেন তার হিসেব বলা কঠিন। কারণ রাষ্ট্রীয়ভাবে সারা বাংলাদেশে কতো মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এর কোন পরিসংখ্যান বের করা হয় নি। ফলে এখনে যা হাজির করব তা সামগ্রিক হামলার ক্ষুদ্র অংশ মাত্র। ভারতের ডানপন্থী গ্রুপ আর.এস.এস-এর নেতৃত্বে ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ ধ্বংস করে দেওয়া হয়। বারবি মসজিদ ধ্বংস আগেও বাংলাদেশে বাবরি মসজিদ ধ্বংস করার গুজব রটিয়ে অ-মুসলিমদের উপর হামলা করা হয়। ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বরের পর সারা দেশে বড় আকারে সাম্প্রদায়িক তাণ্ডব শুরু হয়। ৬ ডিসেম্বর থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১৫ হিন্দু নারী-পুরুষ খুন হয়, ২৬০০ উপর নারী ধর্ষিতা হয়, ১০ হাজার মানুষ আহত হয়, ২ লক্ষ মানুষ গৃহহীন হয়, ৩৬০০ অধিক মন্দির জ্বালিয়ে দেওয়া হয়, ৪০ হাজার বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া ও দখল করা হয় এবং দশ হাজারের উপর হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের দোকান জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। এটি শুধু ১০ দিনের চিত্র। এর মানে এই নয় যে দশ দিন পর সব স্বাভাবিক হয়ে গেছে কিংবা আর কোন সাম্প্রদায়িক হামলার হয় নি। পরবর্তীতে হামলা হয়েছে ধীরে ধীরে বিচ্ছিন্নভাবে। ঢাকা শহরে বড় আকারে হামলা হয় ৬ ডিসেম্বর ও ৭ ডিসেম্বর। ডানপন্থী ইনকিলাব পত্রিকা একটি নিউজ করে; ‘বাবরি মসজিদ ঘটনায় ঢাকার হিন্দুদের মিষ্টি বিতরণ!’ পরের দিন ভুল সংবাদের জন্য তারা ক্ষমা চায় কিন্তু যা হওয়ার এবং যে উদ্দেশ্যে এই সংবাদ করা হয়েছিল তা ঐ রাতেই সফল হয়। রাতের মধ্যে সকল হিন্দু পল্লীগুলো’তে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। ভুল সংবাদের জন্য ইনকিলাব পত্রিকার কোন বিচার কিংবা সরকার থেকে কোন মামলা কোনটাই হয়নি। বাংলাদেশে মিরসরাই, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, ভোলা, মানিকগঞ্জ, চিটাগাং, সুনামগঞ্জ ইত্যাদি জায়গায় বড় হামলার ঘটনা ঘটে। অদ্ভুত বিষয় হল তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া টিভি’তে ভাষণ দেওয়ার সময় ভারতের বাবরি মসজিদ পুনরায় তৈরি করার আহবান জানালেও নিজ রাষ্ট্রের মানুষগুলোর অত্যাচারের কথা ও নিজের প্রশাসনের ব্যর্থতার কথা চেপে যান। বরং ভাষণে পরোক্ষভাবে বুঝিয়ে দিলেন যে; এসব হামলার ঘটনায় রাষ্ট্রীয়ভাবে কাউকে গ্রেফতার কিংবা মামলা হবে না। তাই পরবর্তীতে অমুসলিমদের উপর হামলার তীব্রতা লক্ষ্য করা যায়। পাহাড়েও বাঙালি সেল্টারা হামলা শুরু করে। সেখানে হিন্দু ধর্মাবলম্বী না থাকলেও তারা বৌদ্ধদের উপর হামলা করে। যেমনটি ১৯৭১ সালে পাকিস্তান সেনা বাহিনী সাঁওতালদের হিন্দু বিবেচনা করে গণহত্যা চালিয়েছিল সেই সম্প্রদায়ের উপর। সাম্প্রদায়িক হামলার গুজব রটিয়ে ১৯৯২ সালের এপ্রিল মাসে পাহাড়ে বাঙালি মুসলিমদের হামলায় ৬০০ আদিবাসী মারা পড়ে, ৪৫০০০ বৌদ্ধ আদিবাসী চট্টগ্রাম পাহাড় ছেড়ে ভারতের রিফিউজি ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়। মজার বিষয় হলে মুসলিম সম্প্রদায় থেকে হামলার ঘটনায় আবার রাষ্ট্র-পক্ষ আসামী হিসেবে অমুসলিমদেরই গ্রেফতার করেছে। বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও মিডিয়া বিষয়টি চেপে যাওয়ার ফলে আন্তর্জাতিকভাবে বিষয়টি প্রকাশ হয় নি।

৯২-এ ভারতের বাবরি মসজিদের ইস্যুকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের অমুসলিমদের উপর বয়ে যায় সাম্প্রদায়িক ঝড়। সেই ঝড়ে কয়েক লক্ষ মানুষ রাতের আঁধারে বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যায়, কেউবা রাতের আধারে সাম্প্রদায়িক আমলার শিকার হোন,কেউবা হোন-পুলিশের উপস্থিতিতে নির্যাতিত। মিডিয়ার কল্যাণে এতো বছর পরও বাবরি মসজিদের ঘটনা এই অঞ্চলের মানুষের মন থেকে বিস্মৃতি হয়নি। কিন্তু মুছে গেছে বাবরি মসজিদ ভাঙার সাথে বাংলাদেশের সেই সব মানুষগুলোর কথা,যারা কোনভাবে এই ভাঙার সাথে যুক্ত না হয়েও বাবরি মসজিদ ভাঙার খেসারত দিতে হয়েছিল। বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও মিডিয়া বিষয়টি পুরোপুরি চেপে যায়। এই ইন্টারনেটের যুগেও আপনি গুগল করে দেখলে আশ্চর্য হবেন যে,বাবরি মসজিদ ঘটনায় বাংলাদেশে কী হয়েছিল তার কোন বিশদ উল্লেখ নেই। যদি উল্লেখ থাকেও তাও এক দুই লাইনের মধ্যে সীমাবদ্ধ। বলা যায়, এই বিষয়ে লেখা-লেখি কিংবা জানতে চাওয়াও বাংলাদেশ রাষ্ট্রে এক ধরণের অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। ১৯৮৮ সালে এরশাদ যখন রাজনৈতিক স্বার্থে রাষ্ট্রধর্ম ঘোষণা করল, এর সাথে শুরু হয় সাম্প্রদায়িক হামলা। বাবরি মসজিদে ভাঙ্গার আগেও অনেক ভাবে বাবরি মসজিদভাষার বিষয়ে গুজব রটিয়ে সংখ্যালঘুদের উপর হামলা করা হয়।
সুতরাং ,সাবধানে থাকুন সবাই ।
এই লেখাটির সাথে আমি কিছু গুরুত্বপূর্ণ ছবি পোস্ট করেছি। আশা করছি আপনাদের তথ্যে সাহায্য করবে ।
ধন্যবাদ
– টিটপ হালদার

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of