দাবানল বন্ধে বনে আগুন লাগানোর পরামর্শ!

অস্ট্রেলিয়ার আদিবাসীরা আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য দীর্ঘকাল ধরে একটি কৌশল ব্যবহার করে। সেটি হলো, বনভূমিতে তারা নিজেরা প্রায় সারা বছরই জমিতে আগুন লাগিয়ে রাখত। শুনতে হঠকারী মনে হলেও আদিবাসীদের এই দাওয়াইটি আসলেই কার্যকর বলে মানছেন আধুনিক বিশেষজ্ঞরাও। তারা বলছেন, ইউরোপীয়রা অস্ট্রেলিয়ায় আক্রমণ চালিয়ে উপনিবেশ স্থাপনের অনেক আগে থেকেই ‘সাংস্কৃতিক দহন’ নামে পরিচিত অগ্নি ব্যবস্থাপনার কৌশলগুলো স্থানীয়ভাবে অনুশীলন করা হতো। এখন সেই পদ্ধতিটি ফিরিয়ে আনা গেলে দাবানল থেকে অনেকখানি রক্ষা পাওয়া সম্ভব।

কুল বার্নিং বা হাঁটু পর্যন্ত উচ্চতার আগুন জ্বালানোর প্রক্রিয়া এমনভাবে ডিজাইন করা হতো যেন সেই আগুন প্রতিনিয়ত পুরো ভূমিজুড়ে জ্বলতে থাকে। এই আগুন ছোট ছোট ডালপালা থেকে শুরু করে শুকনো পাতার মতো দাহ্য উপাদান সবই পুড়িয়ে দেয়। এতে করে প্রাকৃতিক দাবানল আঘাত হানার আশঙ্কা কমে যায়।

গত বছর অস্ট্রেলিয়ার দাবানল সংকট শুরু হওয়ার পরে, এই কৌশলটি পুনরায় আরও ভালভাবে চালু করার আহবান বেশ জোরালোভাবে ওঠে। আর সেটি খুব শীঘ্রই চালু হওয়া উচিত ছিল, এমন যুক্তি দিয়ে আদিবাসী জ্ঞান বিশেষজ্ঞ শ্যানন ফস্টার বলেন, বন জ্বলতে হবে। তিনি ডি হারাওয়াল জনগোষ্ঠীর জ্ঞান রক্ষক, তার পূর্বসূরীদের রেখে যাওয়া তথ্যের ওপর নির্ভর করেন তিনি কাজ করেন। এছাড়া তিনি ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি সিডনির (ইউটিএস) একজন আদিবাসী জ্ঞান বিষয়ক প্রভাষক। বংশ পরম্পরায় কয়েক পুরুষ ধরে আহরিত যেসব তথ্য তিনি মানুষকে বলে থাকেন তার বেশিরভাগই বন সম্পর্কিত।

শ্যানন বলেন, ‘এটি একটি গ্রামকে টিকিয়ে রাখার ধারণা দেয়, আমরা আদিবাসী মানুষ হিসাবে যা কিছু করি তার কেন্দ্রবিন্দুতে এই বন টিকিয়ে রাখার ধারণাই থাকে। আমরা একটা গ্রাম থেকে শুধু কী নিতে পারি তার চাইতে, আমরা গ্রামকে কী ফিরিয়ে দিতে পারি, সেটা জরুরি। আদিবাসী সংস্কৃতিতে, গ্রামকে ব্যক্তিরূপে প্রকাশ করা হয়। এই পৃথিবী আমাদের মা। সে আমাদের বাঁচিয়ে রাখে।’

আদিবাসীদের সাংস্কৃতিক দহন, পরিবেশের ছন্দের সঙ্গে তাল রেখে কাজ করে, এর দ্বারা মার্সুপিয়াল এবং স্তন্যপায়ী প্রাণীরা আকৃষ্ট হয়, ফলে আদিবাসীরা শিকার করতে পারে। কুল বার্নিং বা শীতল দহন পৃথিবীর ঘাটতি পূরণ করে এবং জীববৈচিত্র্য বাড়ায়, আগুনের ছাই জমিকে উর্বর করে এবং পটাসিয়াম উৎপাদনক্ষমতা বাড়ায়। এটি সাংস্কৃতিক, আধ্যাত্মিক এবং বৈজ্ঞানিক জ্ঞানের একটি জটিল চক্র। এই দহন বাস্তুসংস্থানে একটি বৈচিত্র্য তৈরি করে এবং এর ফলে অনুকূল জলবায়ু সৃষ্টি হতে পারে। সফট বার্নিং অথবা ক্ষীণ দহন বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা বাড়ায়। এটি পরিবেশকে একটি বিশেষ বায়ুমন্ডলীয় স্তরে উষ্ণ করে তোলে এবং ওই স্তরে গরম এবং শীতল বাতাসের সংঘর্ষে ঘনীভবন হয় এবং বৃষ্টিপাত ঘটে যা আগুন নিরসনে সহায়তা করে।

সিডনিতে থাকা তার প্রবীণ আদিবাসী সদস্যরা অতিমাত্রায় বেড়ে ওঠা ঝোপঝাড় এবং অত্যন্ত শুকনো ডালপালা দেখে বেশ কয়েকবার সতর্ক করেছিলেন যে একটি বিশাল দাবানল আসতে যাচ্ছে। এমন তথ্য জানিয়ে শ্যানন বলেন, এই পরিস্থিতিকে তারা একটি শিশুর এলোমেলো চুলের সাথে তুলনা করে বলেন যে এই চুলকে পরিপাটি করা প্রয়োজন। এজন্য তারা অনুমতি চাইলে, স্থানীয় কর্তৃপক্ষ তাদের সাংস্কৃতিক দহন করতে নিষেধ করেছিল। এদিকে এই সতর্কতামূলক দহন পদ্ধতির কোন গৎবাঁধা নিয়ম নেই কারণ অস্ট্রেলিয়ার ভ‚মি কাঠামো একেক জায়গায় জায়গায় একেক রকম। তা সত্ত্বেও, কয়েকটি রাজ্য অন্যান্য কৌশলের সাথে সাংস্কৃতিক দহন চালু করে বলে জানিয়েছেন দাবানল এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ সমবায় গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান নির্বাহী ডঃ রিচার্ড থর্নটন। তিনি বলেন, উত্তর অস্ট্রেলিয়ায় এক বড় ধরণের ভিন্নতা রয়েছে, যেখানে আদিবাসীদের সাংস্কৃতিক দহন যথেষ্ট পরিমাণে হয়ে থাকে। দক্ষিণের রাজ্যগুলোতে এটি কখনও কখনও স্থানীয় সম্প্রদায়ের প্রয়োজন এবং ইচ্ছা অনুযায়ী হয়।

১৭৮৮ সালে অস্ট্রেলিয়া উপনিবেশিক রাষ্ট্র হওয়ায় পর ধীরে ধীরে সাংস্কৃতিক দহনের রীতি নির্মূল করা হয়েছিল। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে এটি পুনরায় চালু করার পদক্ষেপ দেখা গেছে। অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় উদ্যানের সাবেক বনরক্ষী এবং জেমস কুক বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক নোয়েল প্রিস মধ্য অস্ট্রেলিয়ার সংরক্ষিত পার্কগুলোর জন্য প্রথমবারের মতো অগ্নিকাÐের ম্যানুয়াল লেখেন। তিনি বলেন যে, মেলবোর্নের কিছু অংশে এখনও সাংস্কৃতিক দহন অনুশীলন করা হয়, তবে দক্ষিণ-পূর্ব অস্ট্রেলিয়ার বেশিরভাগ স্থানে তা থেমে গেছে কারণ কিছু বিপদজনক অঞ্চলে গাছপালা জন্মেছে, যেখানে শীতল দহন কাজ করে না। এর অর্থ ‘নোংরা গ্রাম’ সম্পর্কে আদিবাসীদের অত্যন্ত গভীর জ্ঞান ছিল, যেই গ্রামকে ভালভাবে পোড়ানো দরকার।

তবে প্রাচীন অনুশীলনের কিছু ত্রæটিও রয়েছে। অধ্যাপক প্রিস বলেছেন, সাংস্কৃতিক দহনের কারণে ভ‚-গর্ভে জ্বালানীর পরিমাণ ১০ টন থেকে কমে এক টনে নেমে আসতে আসতে পারে। তবে এই দহন কেবলমাত্র মাঝারি মাত্রার আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করবে, তাই বিপর্যয় কমানোর এই দহন একযোগে করা প্রয়োজন। তারপরও, এটি কেবল ঝুঁকি কমাতে পারে। কারণ ব্যাপক আর্দ্রতা এবং তীব্র বাতাস, কোনটাই সাম্প্রতিক আগুন থামাতে পারেনি। তা সত্তে¡ও স্থানীয় সংস্থা ফায়ারস্টিক্সের মতো কয়েকটি প্রতিষ্ঠান নিজেদের জায়গার মধ্যে একেকটি আদিবাসী দহন পদ্ধতি নিয়ে কাজ করেছে।

ড. থর্নটন মনে করেন, যখন এই দাবানল চলতেই থাকে তখন প্রতিটি অঞ্চলে থাকা প্রবীণ আদিবাসীদের সাথে কথা বলা এবং তাদের পরামর্শ শোনা প্রয়োজন। অথচ তিনি যেসব জাতীয় দাবানল গবেষণা কেন্দ্রের ব্যবস্থাপনায় কাজ করেছেন তার কোন বোর্ডে কখনও কোনও আদিবাসীকে বসানো হয়নি। শ্যানন ফস্টার সরকারী সংস্থাগুলির সাথে একসাথে কাজ করতে আগ্রহী, তবে তিনি উন্নয়নের সম্প্রসারণ নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন।

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of