প্রসঙ্গ: করোনাভাইরাস নাকি এক মহাধুম্রজাল!!

(১) Bill Gates যিনি ছোটকালে চিন্তিত ছিলেন নিউক্লিয়ার যুদ্ধ নিয়ে। প্রায় পাঁচ বছর আগে ২০১৫ সালে কি বলেছেন দেখেন? তিনি তখন বলেছেন ঘটবে অন্যটা Influenza. ভাইরাস আঘাত যাতে মহামারি হয়ে বিশ্বে ১০ মিলিয়নের উপরে মানুষ মারা যাবে বলে তিনি অনুমান করেছিলেন। যা এখন পুরোপুরি মিলে যাচ্ছে। এটা কিভাবে সম্ভব? এখন মনে প্রশ্ন জাগছে করোনাভাইরাস Natural নাকি Artificial বা Fabricated? নাকি পুঁজিবাদী বিশ্বে আজ মানুষের জীবন নিয়ে Game খেলা হচ্ছে!!

(২) কয়েকদিন আগে একটা রিপোর্ট পড়েছিলাম আমেরিকা এখন মৃত মানুষ জীবিত করার গবেষণা অনুমোদন করেছে। যা এখন অব্যাহত রয়েছে। আরেক রিপোর্টে পড়েছিলাম অস্ট্রেলিয়া মানুষের স্প্যাম ব্যাংক করেছে, কৃত্রিমভাবে যাতে মানুষ বানানো যায়। টেস্ট টিউব ও সারগোরেট বেবি জম্ম দেওয়া তো অনেক দেশে এখন অনুমোদিত। কোনদিকে যাচ্ছে বিশ্ব বোঝা বড়ই মুশকিল হচ্ছে। এই ভিডিওতে বিল গেটস গরীব রাষ্ট্রের স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা জোর দিয়ে বলেছিলেন এবং ভাইরাসে যাদের স্বাস্থ্যব্যবস্থা খারাপ হবে তারাই মারা যাবে। তিনি আরো বলেছেন পুরোবিশ্বের মানুষ এই ভাইরাসের আঘাতে প্রস্তুত নয়। অথচ আমরা জানি চিকিৎসা বিজ্ঞান এগিয়েছে অনেকদূর। প্রযুক্তির মাধ্যমে বিশ্ব আজ হাতের মুঠোই। স্যাটেলাইট প্রযুক্তি অনেক উন্নত, বিশ্বে পৃথিবীর মতো বসবাস যোগ্য গ্রহ খোঁজা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এভাবেতো পৃথিবীতে কোথায় একটা কণা পড়ে আছে, তাও একটা বাড়িতে বসে জানা সম্ভব। তদ্রুপভাবে যদি চিন্তা করা হয় এই ক্ষুদ্র করোনাভাইরাস যত ছোট হোক না কেন মোকাবেলা করা সহজিই হওয়ার কথা! নাকি পৃথিবীতে জনসংখ্যা কি খুব বেড়েছে, যে কমাতে হবে। সময়ে বিজ্ঞানই ভালো বলতে পারবে আসল রহস্যের ধুম্রজাল, নাকি সবকিছু অদৃশ্যই থেকে যাবে প্রশ্ন রয়ে যায়। নাহলে এভাবে মানুষ মারা যাচ্ছে কেন?

(৩) তৃতীয়বিশ্বের দেশ আমরা আজ নিমিশেই শেষ হতে যাচ্ছি। গরীব থেকে আরো অতি গরীবে পরিণত হতে বাকি কিছু থাকবে না। তাই এতটুকু আলোর অপেক্ষায় আছি আমরা, যে আলোকবিন্দুতে ক্ষণিক আশা হলেও কিছু মানুষ বেঁচে থেকে নতুন পথ দেখতে পাবে।
নিচে লিংক তথ্যসূত্র: https://m.youtube.com/watch?v=6Af6b_wyiwI&feature=share

Leave a Reply

avatar
  Subscribe  
Notify of