করোনা ভাইরাস প্রমাণ করে বিবর্তনবাদ সঠিক

করোনা ভাইরাস প্রমাণ করে বিবর্তনবাদ সঠিক।
বিবর্তনবাদকে মিথ্যা প্রমাণ করতে যেয়েই আস্তিকেরা দাবী করে বিজ্ঞানতো সব সময়ই পরিবর্তিত হতে থাকে তাই বিজ্ঞানকে বিশ্বাস করা যাবে না। বরং ধর্মগুলো বা ধর্মগ্রন্থগুলো যেহেতু শুরু থেকেই অপরিবর্তিত থাকে তাই ধর্মগ্রন্থগুলোকেই বিশ্বাস করতে হবে। বিজ্ঞানকে ধর্মগ্রন্থের চেয়ে বিশ্বাস করা যাবে না।আসলে আস্তিকরা তাদের অন্ধবিশ্বাসের জন্যই তাদের ধর্মগ্রন্থগুলোকে সত্য বলে অন্ধের মতো বিশ্বাস করে।

বাস্তবে ধর্মগ্রন্থ গুলোতে নানা রকমের ভূল তথ্য দেওয়া থাকে যা একটু যাচাই করে দেখলেই ধরা সম্ভব।
পৃথিবীর সব ধর্মগ্রন্থ গুলোতে নানা রকম অবৈজ্ঞানিক কথাবার্তা বলা থাকে যা সেই ধর্মগ্রন্থ গুলোকে মিথ্যা প্রমাণ করে দেয়। বিজ্ঞানের সত্যগুলো যখন ধর্মগ্রন্থ গুলোকে মিথ্যা প্রমাণ করে দেয় তখনই আস্তিকরা তাদের অন্ধবিশ্বাসকে টিকিয়ে রাখতে এই অপযৌক্তিক দাবীগুলো করে। তাদের দাবী পুরোপুরিই মিথ্যা কারণ বিজ্ঞান পরিবর্তনশীল বলেই এটি সব থেকে বিশ্বস্ত হয়।আস্তিকদের দাবী অনুযায়ী বিজ্ঞান পরিবর্তনশীল বলেই বিজ্ঞানকে বিশ্বাস করা যাবে না এই দাবীটির কোনই ভিত্তি নেই। বরং তাদের দাবীকে মিথ্যা প্রমান করে দিয়ে পৃথিবীর সব দেশের অফিস আদালত গুলো বিজ্ঞানকেই সব থেকে বিশ্বস্ত এবং আস্থাশীল হিসেবে দেখে। এবং আদালতের কার্যাবলী নির্ভর করে বিজ্ঞানের তথ্য প্রমাণকে ভিত্তি করেই। তাই আমরা দৈনন্দিন জীবনে দেখতে পাই বিজ্ঞানই সব থেকে বিশ্বস্ত। যেমন কম্পিউটার, ইন্টারনেট এবং প্রযুক্তিগুলো সবগুলোই বিজ্ঞানের বিশ্বস্ততা বা আস্থাশীলতাই প্রমাণ করে। বিজ্ঞানই যে পৃথিবীতে সব থেকে বিশ্বস্ত এবং আস্থাশীল একমাত্র মাধ্যম তার সব চেয়ে উপযুক্ত প্রমাণ হলো চিকিৎসা বিজ্ঞান।

আজ থেকে ৩০ বা ৪০ বছর আগেই যে সব রোগের চিকিৎসা পৃথিবীর কোন ধর্ম, ধর্মগ্রন্থ এবং সেই সব ধর্মের সৃষ্টিকর্তাগুলো সম্মিলিত ভাবেও চিকিৎসা করতে পারতো না সেগুলো চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নত চিকিৎসা আবির্ভাবের ফলে চিকিৎসা করতে পেরেছে। এজন্যই মানুষ বিজ্ঞানের উপরই সব থেকে বেশী আস্থাশীল থাকে। পৃথিবীর কোন ধর্ম, ধর্মগ্রন্থ এবং সমস্ত সৃষ্টিকর্তাগুলো যেসব রোগের চিকিৎসা করতে পারে না সেগুলোর চিকিৎসা বিজ্ঞান করে। আর যেসব রোগের চিকিৎসা করতে পারে না সেসব রোগের চিকিৎসা করা পৃথিবীর কোন ধর্মের কোন ধর্মগ্রন্থের এবং কোন সৃষ্টিকর্তার পক্ষেই সম্ভব নয়। তাই সব কিছুর উপর বিজ্ঞানই হলো বিশ্বস্ত এবং আস্থাশীল সত্য। উদাহরন হিসাবে বর্তমান বিশ্বের করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির দিকে একটু নজর দেওয়া যেতে পারে।

এই করোনা ভাইরাসও বিবর্তনের ফলে তৈরি হওয়া একটি ভাইরাস যা। এই ভাইরাসই প্রমাণ করে বিবর্তন ঘটে অতএব এটা প্রমানিত বিষয়। তাই আস্তিকরা যতই বলুক না কেন বিজ্ঞান পরিবর্তনশীল বলেই বিজ্ঞানকে বিশ্বাস করা যাবে না এসব দাবী পুরোপুরিই মিথ্যা এবং ভ্রান্তিকর। বরং বিজ্ঞান প্রতিনিয়তই প্রমান দিয়ে যাচ্ছে যে বিজ্ঞানই পৃথিবীর সব থেকে বিশ্বাসময় কিছু। সবার উপরেই বিজ্ঞানকে স্থান দিতে হয়। প্রকৃতির পরেই বিজ্ঞানের স্থান। অন্যকিছুর নয়। একদিন দেখবেন এই বিজ্ঞানের মাধ্যমেই বর্তমান বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক ভ্যাকসিন মানুষ হাতে পাবে, কোন মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির বা গীর্জা থেকে নয়।

রবিউল আলম ডিলার
জার্মান প্রবাসী ব্লগার
৩০/০৩/২০২০

ফেসবুক মন্তব্য

১ thought on “করোনা ভাইরাস প্রমাণ করে বিবর্তনবাদ সঠিক

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

55 − = 53