শিশুদের নজরে রাখুন

গতকাল রাতে আসিফ মহিউদ্দীনের পুত্র সন্তানের সাথে ছবি আপলোড করার পর প্রায় অর্ধ-শতাধিক বার্তা জমেছে। আগে যখন আমার বোনের পুত্রদের ছবি আপলোড করতাম- তখনও কিছু কিছু মানুষ ইনবক্সে অদ্ভুত ও বিকৃত সকল মতামত প্রকাশ করতো। তখন বলতো, ‘তোর বোন তো সাদা তাই বাচ্চাও সাদা হইছে কিন্তু তুই তো আর স্মিতার মত সাদা না তাই একটা সাদা মাইয়ারে চুদে সাদা পোলা বের করবি।‘
একদিন আমাদের ছোট্ট প্রবন্ধ ও মননের ছবি দেখে কয়েকজন পুরুষ আমাকে লিখেছিল, ‘বাচ্চা দেখলেই খেয়ে ফেলতে ইচ্ছে করে’। এমন কথা আমরা প্রায় সকলেই আদর ও আহ্লাদের সাথে বলে থাকি। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, আমরা শিশুকামী। আমরা ভালোবেসে ও যত্নে বলে থাকি। কিন্তু সেই সকল মহান পুরুষেরা পরবর্তীতে লিখেছিল, ‘বাচ্চা খাইতে অনেক মজা’।
একসময় আমার এইসব শুনলে বমি আসতো কিন্তু এখন আর আসে না। আমি বুঝে ফেলেছি, এই ধরণের মানুষের সংখ্যা কম নয়। এইসকল মানুষেরা আমাদের আশেপাশেই থাকে, তারা আদরের ছলে বাচ্চা শিশুদের চুষে দেয়, খেয়ে দেয়, টিপে দেয়, হাতিয়ে দেয়, কামড়ে দেয়, ভয় দেখিয়ে যৌন তৃপ্তি লাভ-সহ আরও অনেক যৌন বিকৃত কার্যকলাপ চালিয়ে থাকে।
বয়সে বড় বলে আমরা চুপ থাকি। লোকলজ্জার ভয়ে আশেপাশের সবাইকে দমিয়ে রাখি। যা সম্পূর্ণ ভুল ও অনুচিত। ছোটরা বেয়াদব হতে পারে এবং শিক্ষা দিলে পরবর্তীতে মানুষও হতে পারে কিন্তু বুড়ো-বুড়িরা বেয়াদব থেকে গেলে সেখান থেকে আর মুক্ত হওয়ার পথ থাকে না। আজীবন অমানুষই থেকে যায়। তাই এমন কুরুচিপূর্ণ চিন্তাধারার ও স্বভাবচরিত্রের মানুষের মুখের উপর কথা বলা ও প্রতিবাদ করা আবশ্যক।
পুরুষের কম বয়সী নারীর প্রতি এবং নারীর কম বয়সী পুরুষের প্রতি আগ্রহ হওয়া অস্বাভাবিক নয়। অস্বাভাবিক তখনই হয়, যখনই নারী পুরুষ উভয়ের চিন্তারাজ্য জুড়ে শুধু শিশু, কিশোর-কিশোরীদের ভোগ করার স্বপ্নে মেতে থাকে।
পুরুষের লিঙ্গ দীর্ঘ সময় পর্যন্ত টিকটিকির লেজের মত ছটফট করতেই থাকে এবং চল্লিশ ঊর্ধ্ব হলেই তা ধীরে ধীরে মাতামাতির খেলা থেকে সাময়িক অবসর নিলেও পুরোপুরি ঘুমন্ত হয় না। সাধারণত সেই সময় থেকে অনেকের শিশুদের প্রতি আগ্রহ বাড়তে থাকে। তবে অনেকেই কম বয়স থেকেই শিশুদের প্রতি লোভ থাকে। যারা শিশুকালে এমন পরিস্থিতির শিকার, এক্সএক্সে আসক্ত, শারীরিক অক্ষমতা, অন্ধবিশ্বাসী এবং নারীবিদ্বেষী- তাদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি লক্ষণীয়। যার ফলে লিঙ্গ মুখ্য নয়।
পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব পুরুষেরা টিকটিকির মত লাফানোর ক্ষমতা রাখে না বিধায় তখন তারা ছোট্ট, অবুঝ, নিষ্পাপ, সরল শিশু কিশোর-কিশোরীদের শরীরে হাত দিয়ে, ছুঁয়ে, ধরে, চাপ দিয়ে, চুষে অসুস্থ যৌনাচারে লিপ্ত হয়ে থাকে। এটি একটি ভয়ংকর রোগ, যাকে পেডোফিলিয়া বলা হয়। এটি নিষ্পাপ, অবুঝ, সরল, ছোট্ট শিশুদের উপর অত্যাচার, নিপীড়ন ও জঘন্য অপরাধ। এই সকল মানুষেরা নিজের অসুস্থ যৌনাচারকে গুণ্য করে অন্যের দ্বারা নিজের আঘাতকে মুখ্য করে তোলে।
ফেসবুক মন্তব্য

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

96 − = 90