কাদের মোল্লার রায় প্রত্যাখান করে ঢাকা ও চট্টগ্রামে অনির্দ্দিষ্ট সময়ের জন্য অবস্থান (লাইভ আপডেটসহ)

শাহবাগে শাহবাগ


শাহবাগে শাহবাগ

ইতিহাসের জঘন্যতম যুদ্ধ ও মানবতা বিরোধী অপরাধী, কসাই কাদের বলে খ্যাত জামায়াত নেতা আবদুল কাদের মোল্লার বিচারের যাবজ্জীবন শাস্তি রায়কে প্রত্যাখ্যান করে এবং অন্যান্য যুদ্ধ অপরাধীদের ফাঁসির দাবীতে দেশের বিভিন্ন স্তরের অনলাইন এক্টিভিস্ট, ব্লগার, সাংবাদিক, রাজনৈতিক কর্মী ও দলমত নির্বিশেষে বিভিন্ন পেশাজীবি প্রতিবাদ জানাতে শাহবাগ মোড় এলাকায় সমবেত হয়েছেন। ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে এখনও দলে দলে এই প্রতিবাদ সমাবেশে সবাই একত্রিত হচ্ছেন। সকলের একটাই দাবী, “কাদের রাজাকের ফাঁসি চাই। প্রহসনের এই রায় মানি না, মানবো না।” সমাবেশকারীরা শাহবাগ এলাকা ঘিরে রেখেছেন বলে জানা যায়।

শাহবাগে প্রতিবাদ

শাহবাগে উপস্থিত একজন প্রতিবাদকারীর মাধ্যমে জানা যায়, তারা শাহবাগ এলাকায় মানব বর্ম তৈরী করেছেন। সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। প্রতিবাদকারীরা সন্ধ্যায় মশাল মিছিলের আয়োজন করেছেন। রাতভর তারা শাহাবাগ এলাকায় অবস্থান করে আগামী কালের জামায়াত-শিবির কর্তৃক আহুত হরতালকে প্রতিরোধ করবেন এবং সকালে এই অপ্রত্যাশিত রায়ের প্রতিবাদে ট্রাইব্যুনাল ঘেরাও করবেন বলে উদ্যোক্তাদের একজন জানিয়েছেন। সমাবেশকারীরা সবাইকে এই কর্মসুচীতে অংশ নেওয়ার জন্য উদ্ধাত্ত আহবান জানান।

আপডেট-১
সময়ঃ সন্ধ্যা ৬-৩০

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশ শুরু হয়েছে। এতে গণসঙ্গীত পরিবেশন করেন বিশিষ্ট প্রতিবাদী ও গণসঙ্গীত শিল্পী কফিল আহমেদ। সামাবেশে অবস্থানকারীরা স্ব স্ব পায়ের জুতা খুলে হাতে নিয়ে ব্যতিক্রমধর্মী প্রতিবাদ জানান। এরপর সবাই হাতে প্রজ্জ্বলিত মোমবাতি নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন। ইতিমধ্যে সমাবেশস্থলে অনেকগুলো মশাল এসেছে মশাল মিছিল করার জন্য। মশাল মিছিল নিয়ে সহস্রাধিক প্রতিবাদকারী কিছুক্ষণের মধ্যে ট্রাইব্যুনাল অভিমুখে যাত্রা করবেন প্রতিবাদ জানাতে। সেখানে প্রতিবাদকারীরা মশাল মিছিল নিয়ে অবস্থান করবেন বলে আয়োজকরা জানিয়েছে।

আপডেট-২
সময়ঃ রাত ৮-০০

প্রতিবাদকারীরা মশাল মিছিল নিয়ে শাহবাগের আশপাশের রাস্তা প্রদক্ষিণ করে আবার শাহবাগে মিলিত হয়েছেন। ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে রায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে দলে দলে শাহবাগে আসছেন। বর্তমানে শাহবাগের সমাবেশে বিভিন্ন শ্রেনীর ব্যক্তিবর্গ ও নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখছেন। পাশাপাশি মুর্হুমুহু শ্লোগানে কম্পিত হচ্ছে শাহবাগ এলাকা।

চট্টগ্রামঃ
এদিকে চট্টগ্রামের বিভিন্ন জায়গায় জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা হরতালের স্বপক্ষে মিছিল বের করে বোমাবাজি করছে। চট্টগ্রামের বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের কর্মী, পেশাজীবি, লেখক, ব্লগার ও অনলাইন এক্টিভিস্ট রাজপথ দখল করে রেখেছেন। চট্টগ্রামের সর্বত্র মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের বিভিন্ন সংগঠন ও মানুষনজন মিছিলে মিছিলে তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন।

আপডেট-৩
সময়ঃ রাত ৮-৩০

শাহবাগের এখন লোকে লোকারণ্য। তিল ধারণের ঠাঁই নাই। বিভিন্ন সূত্রে জানায়, ঢাকা শহরে বিপুল সংখ্যক বিজিবি নামানো হয়েছে। বিজিবি’র সদস্যরা শাহবাগের সমাবেশস্থলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। সমাবেশে অবস্থানকারীরা যে কোন মুল্যে শাহাবাগে রাতভর অবস্থান করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। যে কোন ধরণের বাঁধার মোকাবেলা করতে তারা প্রস্তুত বলে জানান। এদিকে চট্টগ্রামেও থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সবার মধ্যে এক ধরণের উত্তেজনা ও আতংক পরিলক্ষিত হচ্ছে।

আপডেট-৪
সময়ঃ রাত ৯-০০

শাহবাগের রায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারীদের সমাবেশে সংহতি জানানোর জন্য জোট সরকারের তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এসেছে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখছেন। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, শাহবাগের মোড়ে এই জনসমুদ্র দেখে বুঝা যায়, দেশের সবাই যুদ্ধ অপরাধীদের মৃত্যুদন্ড চায়। সমাবেশে ইতিমধ্যে আরো মানুষের সমাগম ঘটেছে। সমগ্র ঢাকা শহর যেন শাহবাগের দিকে ছুটছে। এদিকে সমগ্র ঢাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

আপডেট-৫
সময়ঃ রাত ১২-০০
সমাবেশে এখনো অসংখ্য মানুষের ভীঁড়। মানুষ কমেনি। অনেকে চলে যাচ্ছেন, যোগ দিচ্ছেন আরও অনেকে এসে। সমাবেশে যোগ দিয়েছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, বিশিষ্ট সংস্কৃতিকর্মী নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, শিল্পী সব্যসাচী হাজরা প্রমূখ। এই কর্মসূচীর খবর সংগ্রহ করতে ছুটে এসেছেন বিভিন্ন মিডিয়ার সিনিয়র সাংবাদিকেরা। উপস্থিত সবার একটাই বক্তব্য, এই রায় আমাদের মনোভাব প্রকাশ করেনি। আমরা ফাঁসি চাই। এবং সব রাজাকারের ফাঁসি। উপস্থিত আন্দোলনকারীরা গান গেয়ে, গিটার তবলা বাজিয়ে একে অপরকে অনুপ্রাণীত করছেন। সভাস্থলের একপাশে প্রজেক্টর লাগিয়ে দেখানো হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধে খুন হত্যা গুম ধর্ষণের নানা দলিল। উপস্থিত সবার একটাই দাবি রাজাকারের ফাঁসি চাই। আন্দোলনকারীদের মধ্যে হতাশার ছাপও দেখা যাচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় জটলা পাকিয়ে তারা একে অপরের সঙ্গে মত বিনিময় করছেন। অনেকেরই আশঙ্কা, কাদের মোল্লার মতো অপরাধীর যাবজ্জীবন হলে অন্য কারোই আর ফাঁসি হওয়ার সুযোগ নাই। সবাই এই ভেবে মুষড়ে পড়ছেন যে, এবার জামাতিরা কি তাহলে জিতেই গেল?

আপডেট-৬
সময়ঃ দুপুর ১২-০০
শাহবাগে বিক্ষোভ চলছেই। হাজারো মানুষের ঢল তীব্র রোদকে উপেক্ষা করেই। চলছে সভা-সমাবেশ-বক্তৃতা, প্রতিবাদী গণসঙ্গীত ওশ্লোগান। একটাই শ্লোগান সবার মুখে- রাজাকারদের ফাঁসি ছাড়া অন্য কোনো রায় মানি না।
শাহবাগে সমাবেশস্থলে সবার মুখে একটাই কথা, এ যেন তাহরীর স্কয়ার, এ যেন তিয়ান আনমেন। সভাস্থলে আজ এসেছেন স্বয়ং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মখা আলমগীর। মন্ত্রীর প্রটোকল নিয়ে এলেও তিনি দাবি করে গেছেন, আমি একজন সাধারণ মানুষ। রাজাকারের ফাঁসি আমারও প্রাণের দাবি। আরো এসেছেন, বন ও পরিবেশমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। বক্তৃতা দিচ্ছেন বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত মুক্তিযোদ্ধারা। মুক্তিযুদ্ধ গবেষক অমি রহমান পিয়ালও কিছুক্ষণ আগে বক্তব্য রেখেছেন।
আয়োজক ব্লগারদের দাবি, সবাই শাহবাগে নেমে আসুন। বিরাট জনতার মঞ্চ তৈরি করে সরকারকে জানিয়ে দিন, ফাঁসি ছাড়া আর কোনো রায় জাতি মানবে না।

আপডেট-৭
সময়ঃ বিকেল ৫-৩০
শাহবাগে প্রতিবাদ সমাবেশ চলছেই। ঢাকার বিভিন্ন প্রান্তের মানুষই শুধু না, মানুষ ছুটে আসছেন দেশের আনাচে কানাচে থেকে। অনেকের কাছেই শোনা গেছে, তাদের বন্ধুরা এই সমাবেশে যোগ দেয়ার জন্য দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে রওনা দিয়েছেন।
শাহবাগে জমায়েত তাই বেড়েই চলেছে। অনলাইন এক্টিভিস্টদের ডাকা প্রোগ্রাম এখন পুরো জাতির আকাঙ্খার প্রতীকে পরিণত হয়েছে। চাপটা এতই বেশি যে, ক্ষমতাসীন দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা এখানে ছুটে আসছেন। মন্ত্রীরাও বাদ পড়েননি।
এখন পর্যন্ত আন্দোলনকারীরা দৃঢ়- ফাঁসির রায় ছাড়া তারা ঘরে ফিরে যাবেন না। মশাল মিছিলের প্রস্তুতি চলছে। সন্ধ্যার মশাল মিছিলে অংশ নিতে এখনই বেরিয়ে পড়ুন ঘর থেকে।

আপডেট-৮
সময়ঃ বিকাল ৭-০০
স্থানঃ চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্ত্বর
চট্টগ্রামের প্রতিবাদ

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্ত্বর প্রতিকারীরা এসে বিকাল তিনটা থেকে সমবেত হচ্ছে। চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল সহকারে প্রেসক্লাবের বিক্ষোভ জমায়েতে অংশ নিচ্ছে। চট্টগ্রামের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন, রাজনৈতিক কর্মী, পেশাজীবি, মুক্তিযোদ্ধা, ছাত্র, খেটে খাওয়া মানুষজন এসে বিক্ষোভের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করছে। গণসঙ্গীত শিল্পীরা রাজাকার বিরোধী সঙ্গীত পরিবেশন করছেন। সঙ্গীতের বিরতিতে “তুই রাজাকার, তুই রাজাকার” শ্লোগানে কাঁপছে বীর চট্টলা। চট্টগ্রামের বিক্ষোভকারীরা সন্ধ্যার পর অসংখ্য মোমবাতি জ্বালিয়ে অন্ধকার থেকে আলোর মিছিলে যোগ দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন। এখনও বিভিন্ন এলাকার ওয়ার্ড কমিশনারের নেতৃত্বে অসংখ্য জনতা যোগ দিচ্ছেন বিক্ষোভে। আয়োজকদের থেকে জানা যায়, এই বিক্ষোভ চলবে লাগাতার। বিজয় ছিনিয়ে আনা ছাড়া চট্টগ্রামের বিক্ষোভকারীরা ঘরে ফিরবে না। সবার একটাই দাবী- সকল যুদ্ধ অপরাধীর ফাঁসি ও জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা।

আপডেট-৯
সময়ঃ রাত ৮-০০
স্থানঃ শাহবাগ
মশাল মিছিল হলো। গণজমায়েত বাড়ছেই। এখন সবার একটাই আশঙ্কা- আগামীকাল এই গণজমায়েতকে সরকার হঠিয়ে দিতে চাইবে কিনা! উপস্থিত সবার একটাই দাবি- কেউ ঘরে বসে থাকবেন না। নেমে আসুন, দখলে রাখুন রাজপথ, যতক্ষণ পর্যন্ত রাজাকারদের ফাঁসি নিশ্চিত না হোয়।

আপডেট-১০
সময়ঃ রাত ১১-০০
স্থানঃ চট্টগ্রাম।

ঘাতক-দালাল বিরোধী আন্দোলন
চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্বরে বিক্ষোভকারীদের মোমবাতির শিখা প্রজ্জ্বলন।

চট্টগ্রামে বিক্ষোভকারীরা সন্ধ্যার পর মোমবাতি জ্বালিয়ে প্রেসক্লাব চত্ত্বর আলোকিত করে বিক্ষোভ অব্যাহত রাখেন। শ্লোগান আর গণসঙ্গীতের পাশাপাশি চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ ও সংগঠনের পক্ষ থেকে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। মোমবাতির পাশাপাশি অসংখ্য মশাল জ্বালিয়ে চট্টগ্রামের বিক্ষোভকারীরা জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ ও একাত্তরের সকল ঘাতকের ফাঁসির দাবি জানিয়ে রাত ১১-০০ টা পর্যন্ত বিক্ষোভ অব্যহত রাখেন। সন্ধ্যার পর মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘ওরা ১১ জন’ প্রদর্শিত হয়। প্রেসক্লাবের আশেপাশে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসএসসি পরীক্ষা সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন হওয়ার কথা বিবেচনা করে চট্টগ্রামে বিক্ষোভকারীরা আগামীকাল (০৭-০২-২০১৩) দুপুর পর্যন্ত বিক্ষোভ কর্মসুচী মুলতবি করেন। যথারীতি বিকাল তিনটা থেকে পুণরায় প্রেসক্লাব চত্ত্বরে সবাই সমবেত হয়ে বিক্ষোভ কর্মসুচী অব্যহত রাখার কর্মসুচী ঘোষনা করে।
শাহবাগে শাহবাগ
আপডেট-১১
সময়ঃ তৃতীয় দিবস। দুপুর ২-০০
স্থানঃ শাহবাগ (এখন থেকে শাহবাগ স্কয়ার)
তীব্র রোদ। অনেক আশঙ্কাকে হঠিয়ে তবু শাহবাগ মোড় দখল করে রেখেছে প্রতিবাদকারীরা। বিশাল গণজমায়েতকে শহীদ মিনারের দিকে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব এসেছিল বহুবার। কিন্তু সবাই শাহবাগে থাকার সিদ্ধান্তে অটল থেকেছেন। এখনো অনেক গেইম চলছে এই নিয়ে। আগামীকালের মহাসমাবেশে প্রধানমন্ত্রী টেলিকনফারেন্সে ভাষণের মাধ্যমে এই আন্দোলনের ইতি টানার কথা জোরেশোরে শোনা যাচ্ছে অনেকের মুখে। আন্দোলনকারীরা তাই সবাইকে সজাগ হতে বলছেন। যত বেশি মানুষ শাহবাগে জড়ো হবে তত কঠিন হবে এই আন্দোলনকে পকেটে ভরা বা দমন করার সব চেষ্টা। জামাতিরাও যে কোনো সময় হামলে পড়তে পারে। তাই দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধকে এড়িয়ে যাবেন না। মুক্তিযুদ্ধ শেষ হয়ে যায়নি। আজ আবারো হচ্ছে। পরেও হবে। আজ যারা নীরবতা পালন করছেন বা যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে দাঁড়াচ্ছেন, কাল বা পরশু তাদের বিচারের দাবি তুলবে আমাদের উত্তরসূরীরাই। শাহবাগে আসুন, উচ্চকণ্ঠে আওয়াজ তুলুন- ক-তে কসাই কাদের মোল্লার ফাঁসি চাই।

1

আপডেট-১২
সময়ঃ চতুর্থ দিবস। সকাল ১০-০০
স্থানঃ শাহবাগ স্কয়ার
আজ শাহবাগে মহাসমাবেশ। এই মহা সমাবেশ থেকেই দিকে দিকে বার্তা পাঠাতে হবে, রাজাকারদের ক্ষমা নাই। ফাঁসি ছাড়া অন্য কোনো বিচারের সুযোগ নাই। সবাই যত দ্রুত পারেন, চলে আসেন। যে যেখানে আছেন, পাশের জনকে ডেকে নিয়ে রওনা দিন।
এখন পর্যন্ত আমরা শুনতে পাচ্ছি, স্বার্থান্ধ দলবাজরা চাচ্ছে সমাবেশের মধ্য দিয়ে এই আন্দোলনের সমাপ্তি টানতে। এটা ঠেকানোর জন্যই আন্দোলনের আন্তরিক কর্মীদের উপস্থিতি আরো বেশি হওয়া দরকার। সত্যি-মিথ্যা জানি না, জুমার নামাজের পর জামাতিদের একটা দল সমাবেশের দিকে আগাইতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। এই উছিলায় পুলিশ আবার সমাবেশস্থলের নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিয়েছে। নির্দিষ্ট এলাকা পুলিশ কর্ডন করে রাখবে। এতে আবার সভাস্থলের গন্ডি ছোট হচ্ছে।
নানা ধরণের ষড়যন্ত্র চলছে এই আন্দোলন নিয়ে। এখনই তাই মাঠে নামা দরকার।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২৯ thoughts on “কাদের মোল্লার রায় প্রত্যাখান করে ঢাকা ও চট্টগ্রামে অনির্দ্দিষ্ট সময়ের জন্য অবস্থান (লাইভ আপডেটসহ)

  1. কর্তৃপক্ষকে লেখাটা স্টিকি

    কর্তৃপক্ষকে লেখাটা স্টিকি করার জন্য জোর আবেদন জানাচ্ছি।

    আর আশা করছি লেখক নিয়মিত আপডেট দিয়ে আমাদের অবগত করবেন।

  2. আমরা যারা ঢাকার বাইরে আছি
    আমরা যারা ঢাকার বাইরে আছি তারা ইচ্ছা থাকলেও এই বিক্ষোভে অংশ নিতে পারছি না। কিন্তু আমাদের হৃদয়ে দাউ দাউ জ্বলছে ক্ষোভের আগুন। আমাদের সহযোদ্ধা ভাইয়েদের প্রতি স্যালুট। আপনারা এক নন, সারা দেশের প্রতিটা দেশপ্রেমিক মানুষের সমর্থন আপনাদের সাথে আছে।

    ইস্টিশন কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ লাইভ আপডেটের ব্যবস্থা রাখার জন্য।

  3. শাহবাগে আসতে না পারার কারনে
    শাহবাগে আসতে না পারার কারনে এটটা খারাপ আজকের আগে আর কখনই লাগে নাই।সহযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা আর কৃতজ্ঞতা রইল।পোষ্ট ষ্টিকি করায় স্টেশন মাষ্টারকে ধন্যবাদ।

    1. যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই
      যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই না,নির্বিচারে ফাসি চাই.… একমত
      এইডা কিছু হইল? এইডা কার রায়? টবি ক্যাডমেনদের?
      :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

  4. আমি জানি না আসলে কি হবে! এই
    আমি জানি না আসলে কি হবে! এই মাপের আন্দোলন কিছুই করতে পারবে না। সারা দেশে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়লে, গণজাগরণ ঘটলে একটা কিছু সম্ভব। নইলে এই জানোয়ারগুলো পার পেয়ে যাচ্ছে… আমরা হেরে যাচ্ছি

  5. আপনাদের এই কর্মকান্ডতে খুব
    আপনাদের এই কর্মকান্ডতে খুব খুব থাকতে ইচ্ছে করছে,আপনারা এগিয়ে যান আমরাও আসছি।
    দয়া করে কেউ হাল ছেড়ে দিবেন না,ধরে রাখুন এই আন্দোলন রাস্তায় যখন নেমেছেন তখন আদায় করেই ছাড়ুন,অনুরোধ রইল আপনাদের প্রতি।

  6. সারাদিনের হতাশার শেষে শাহবাগ
    সারাদিনের হতাশার শেষে শাহবাগ এর এই অবস্থান কর্মসূচী কিছুটা স্বস্তি এনেছে মনে,জানি না কিছু হবে কি না কিন্তু এটা মনে হচ্ছে যে আমরা এমনি এমনি ছেড়ে দিব না।শাহবাগ এ থাকতে পারছি না শারীরিক ভাবে কিন্তু মনটা পড়ে আছে সেখানেই।শুভকামনা রইল।

    1. রাজপথ কোনভাবেই ছাড়া যাবে না।
      রাজপথ কোনভাবেই ছাড়া যাবে না। মনে রাখতে হবে, এই সুযোগ যদি আমরা একবার হারাই আর ফিরে পাব না। রাজপথে থেকে ট্রাইব্যুনাল ও সরকারকে জানান দিতে হবে জনগণের সত্যিকারের প্রত্যাশা কি? ট্রাইব্যুনাল ও সরকারকে বুঝাতে হবে জনগণ সাথে আছে। জনগণের প্রত্যাশার মুল্য না দিলে কিন্তু খবর আছে। জামায়াত-শিবিরকে রাজনীতি করার অধিকার বলবৎ রেখে সুন্ঠভাবে বিচারের কার্যক্রম চালানো যে সম্ভব নয়, এটা আশাকরি সরকার টের পেয়েছেন। এখন সরকারের উচিত জামায়াত-শিবিরসহ এদের সংশ্লিষ্ট সকল সংগঠনের কার্যক্রম নিষিদ্ধ করার জন্য আইনী পদক্ষেপ গ্রহন করা।

  7. কিছুক্ষন পূর্বে
    কিছুক্ষন পূর্বে আইনপ্রতিমন্ত্রী বলেছেন আপনাদের আরো আগেই নামা উচিত ছিলো।তিনি অনুরোধ করে জানিয়েছেন আপনারা যখন নেমেছেন তখন এই রাজপথ আর ছাড়বেন না সরকার আপনাদের সাথেই আছে।

    জয় বাংলা

    1. আইনমন্ত্রীর ঐ বক্তব্যটি আমি
      আইনমন্ত্রীর ঐ বক্তব্যটি আমি দেখেছি। একাত্তুর টিভির টকশো’তে বলেছেন। এটা কোন রকম প্রতারণা না হলেই বাঁচি। তবে মানুষ কিন্তু আইনমন্ত্রীর কথায় রাজপথে নামেই নাই। তাই, আইনমন্ত্রীর এখন চাওয়া না চাওয়ার কোন মুল্য নাই। তবে সরকার কতটুকু রাজপথে প্রতিবাদকারীদের সাথে আছে সেটা দেখার বিষয়। অপেক্ষায় থাকলাম।

          1. সকালে চশমা লাগিয়ে প্রথম আলু
            সকালে চশমা লাগিয়ে প্রথম আলু চোখের সামনে মেলে ধরব। দেখি খুঁজে পাই কিনা? মতি ভাইয়ের গতিটা একটু বুইজা লই! :চোখমারা:

    1. প্রদীপের শিখা নিভে
      প্রদীপের শিখা নিভে নাই,চট্টগ্রামের যে স্থানে আমরা আন্দোলন করছি ঐস্থানের পাশেই আগামীকাল এস.এস.সি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।এস.এস.সি পরীক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে আমরা আগামীকাল বিকাল তিনটা থেকে শুরু করবো আবার।

  8. আজকের আপডেট জানতে চাইছি
    আজকের আপডেট জানতে চাইছি রেলমন্ত্রীর কাছে। গতকাল ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও শাহবাগ যেতে পারি নি। আজ যাবই যাব।

  9. পাবলিক ক্যান এতো স্বার্থ
    পাবলিক ক্যান এতো স্বার্থ খোজে। আন্দোলন গড়ে উঠতে না উঠতেই কতিপয় মানুষ হিসেব কষতে বসে যায়। ভাগাভাগি শুরু হয়। শুরু হয় টানা হেচড়া। :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

  10. পোষ্ট দাতার প্রতি অনুরোধ
    পোষ্ট দাতার প্রতি অনুরোধ আপডেট এর সময়ের সাথে তারিখটাও যোগ করে দেবার জন্যে।আন্দোলন তৃতীয় দিনে যাচ্ছে।অকুপাই শাহবাগ।

  11. আমার একটু বিচারকের লগে কথা
    আমার একটু বিচারকের লগে কথা কইতে ইচ্ছা করতাছে । হ্যারে জিগাইতাম হ্যারে জিগাইতাম হ্যায় এমুন রায় ক্যান দিল। ভাই কেউ বিচারকরে শাহবাগ মোড়ে আনার ব্যবস্থা করতে পারবেন টেলিকনফারেন্সে-এর মাধ্যমে জিগাইতাম………. :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :ক্ষেপছি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

  12. আমি একটা মা; আমার বাবা-মা আমি

    আমি একটা মা; আমার বাবা-মা আমি যুদ্ধের সময় হারাইছি বাবা। আমরা কি এই অভিশাপ নিয়ে চলে যাব দুনিয়া থেকে???
    রাজাকারদের হাত থেকে বাঁচাও, এরা আজকে বুক ফুলাইয়া ঘুরে!!!
    এরা “V” চিহ্ন দেখায়!!!
    এই চুনোপুটিগুলা কিভাবে গাড়ি ভাঙচুর করে???
    তোমরা কেন বসে থাকবে???

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

− 4 = 2