আমরা সুশিল আমরা সব মানবতা অপরাধের বিচার চাই

“আমরাও যুদ্ধপরাধীদের বিচার চাই…তবে। আমরা চাই সব হত্যার বিচার হোক। বিশেষ করে আওয়ামীলীগ আমলে সব হত্যা কারীর বিচার। বিশ্বজিৎ হত্যার বিচার।” থাবা বাবা প্রশ্ন রেখেছিলেন, বিশ্বজিৎ এর হত্যার জন্য সুর উঠে কিন্তু জামাত যখন বাসে মানুষ পুড়িয়ে মারে, তার নামটা জানারও প্রয়োজন বোধ করিনা। এই থাবা বাবাই এখন সেই নামের তালিকায় যোগ হয়েছে। সোনা ব্লগের পোস্টের চারদিন পরে হত্যা যজ্ঞ আমাদের নিশ্চিত করছে,এর সাথে সোনাব্লগের ব্লগার,জামাত ,শিবির এই হত্যার সাথে জড়িত। আরো প্রমাণ হয়তো পুলিশ পেয়ে যাবে।

হুম, এবার আমরাও আপনাদের সাথে বিচার চাই।


“আমরাও যুদ্ধপরাধীদের বিচার চাই…তবে। আমরা চাই সব হত্যার বিচার হোক। বিশেষ করে আওয়ামীলীগ আমলে সব হত্যা কারীর বিচার। বিশ্বজিৎ হত্যার বিচার।” থাবা বাবা প্রশ্ন রেখেছিলেন, বিশ্বজিৎ এর হত্যার জন্য সুর উঠে কিন্তু জামাত যখন বাসে মানুষ পুড়িয়ে মারে, তার নামটা জানারও প্রয়োজন বোধ করিনা। এই থাবা বাবাই এখন সেই নামের তালিকায় যোগ হয়েছে। সোনা ব্লগের পোস্টের চারদিন পরে হত্যা যজ্ঞ আমাদের নিশ্চিত করছে,এর সাথে সোনাব্লগের ব্লগার,জামাত ,শিবির এই হত্যার সাথে জড়িত। আরো প্রমাণ হয়তো পুলিশ পেয়ে যাবে।

হুম, এবার আমরাও আপনাদের সাথে বিচার চাই।

এই দেশে খুন,হত্যা প্রতিদিনই হয়। তবে বেশির ভাগই ব্যাক্তিগত লোভ লালসা,হিংসা বিদ্বেষ থেকে। পারিবারিক কোলাহল,ব্যাবসায়ী কোন্দল,জমি নিয়ে বিরোধ। কখনো কখনো রাজনৈতিক প্রতিপক্ষও এই আক্রমনের শিকার হন। আমরা এই সব ভালই জানি। কিন্তু এই প্রতিদিনের হত্যা,এবং বাসে পুড়িয়ে মারা,অগ্রনী ব্যাংকের লিফ্ট ম্যানকে হত্যা করা এক ব্যাপার নয়। এর সহজ কারন এই লোকেরা কোন ভাবেই ব্যক্তিগত শত্রুতার কারনে মরা যায় নি। মারা গেছেন এক দল জঙ্গি বর্বর আক্রমনের শিকার হয়ে। এই জঙ্গি বর্বর আর কেউ নয়, জামাতে ইসলাম এবং তার ছাত্র সংগঠন শিবির। তারাই তাদের রাজনৈতিক স্বার্থসিদ্ধির জন্য খুন করে যাচ্ছে একের পর এক নিরপরাধ মানুষকে। তারা ব্যক্তি গত স্বার্থের জন্য এই খুন করে নাই করেছে, করেছে তাদের নোংরা আদর্শে অন্ধ হয়ে। তাই এই খুনের দায় কেবল একজন ব্যক্তিকে দোষী করার সুযোগ নেই। করতে হলে তাদের সংগঠনকে করতে হবে। এর বিচার তাই কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে নয় হতে হবে তাদের সংগঠনের বিরুদ্ধে।

যারা এতদিন এই আন্দোলনকে প্রশ্ন বিদ্ধ করার চেষ্টা করেছেন। যারা এই আন্দোলনকে হেয় করার চেষ্টা করেছেন। যারা এই আন্দোলনকে তরুণদের তুচ্ছ করতে চেষ্টা করেছেন। যারা এই আন্দোলনকে এজেন্ডার জন্য ব্যবহার করতে চেষ্টা করেছেন, এবার তারা জবাব দেন। কেন খুন হলো রাজিব? আপনারা প্রজন্ম চত্ব্বরের আন্দোলনের সাথে অনেক লম্বা দাবীর লিস্ট তুলে দিতে চেয়েছেন। আপনারা চাচ্ছেন শাহবাগ যেন যুদ্ধপরাধীদের ফাঁসির দাবীর সাথে অন্য দাবী গুলোও তুলে। ভাল কথা। এবার আমরা দাবী তুললাম রাজীব হত্যার দাবী। আপনার এবার সিদ্ধান্ত নিন কি করবেন? পাশে এসে দাঁড়াবেন? নাকি আবার নিরব থাকার চেষ্টা করবেন? যদি রাজীব হত্যার বিচার চান তবে সহযোগিতা করোন। থাবা বাবার হত্যার জন্য দায়ী জামাত শিবিরকে পাশ থেকে সরিয়ে দিন।

রাজিব হত্যার দায় জামাত শিবিরের। যারা একাত্তরে ১৪ ডিসেম্বর থেকে প্রতিবাদীদের হত্যা করে আসছে । আজ ২০১৩সাল। আর কত হত্যা করলে আপনারা এদের বিচার চাইবেন? নিরপেক্ষ থেকে নিজেদের বিলুপ্ত করবেন না। সাহস করে একবার বলুন এই হত্যার বিচার আপনারা চান কি না! একবার সাহস করে স্পষ্ট ভাষায় আমাদের আন্দোলন নিয়ে কথা বলেন, যদি এই জামাত শিবিরকে আঁচলের নিচে রাখতে চান, ভাল কথা। তবে এত লজ্জা পাচ্ছেন কেন? আর যদি না রাখতে চান, আসুন এই জাগরণের দিনে এক সাথে দাঁড়াই। এই হত্যার বিচার চাই। এই জামাত শিবিরকে অতীত বর্তমান সকল জঙ্গি আচরণের জন্য এই বাংলার মাটি থেকে তাদের নিষিদ্ধ করে দিই।

ভাবছিলাম আবেগটা সংবরণ করে লেখাটা লিখতে পারব। পারি নাই,কাল রাত থেকে কোন ভাবেই লিখতে পারছিনা।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৬ thoughts on “আমরা সুশিল আমরা সব মানবতা অপরাধের বিচার চাই

  1. আবেগকে মুছে চাপা দিয়ে রাখুন।
    আবেগকে মুছে চাপা দিয়ে রাখুন। শোককে বিদ্রোহে পরিণত করুন। থাবা বাবাসহ জামায়াত-শিবির কর্তৃক অতীতের সব অপরাধের শাস্তি চাই। এই মহুর্তে বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে এদের নিষিদ্ধ করা হোক।

    1. আওয়ামীলীগ সংখ্যা গরিষ্ঠ
      আওয়ামীলীগ সংখ্যা গরিষ্ঠ সংসদে, মাঠে আছে বিপুল মানুষের আন্দোলন, পাশের রাষ্টও এই ব্যপারে বিরোধিতা করবে না বলেই মনে হয়। তাহলে কেন কালক্ষেপণ হচ্ছে বুঝতে পারছি না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

35 + = 41