একজন থাবা বাবা এবং আমাদের লজ্জা

ব্লগার থাবা বাবা ওরফে রাজিব হায়দার খুন হয়েছেন। রাজিব খুন হননি, খুন হয়েছে আমাদের ব্লগারদের বিবেক, স্বাধীনতা। এই খুনের মাধ্যমে খুনীরা কি বার্তা দিতে চাইল? ওরা আমাদের ব্লগারদের কন্ঠরোধ করবে? যদি ওরা তাই ভেবে থাকে তাহলে চরম ভুল করেছে। আন্দোলনে নামুন, এবার আঘাত হানতে হবে, চরম আঘাত। খুনিগুলোর একটাকেও বাঁচতে দেওয়া যাবে না। সবগুলাকে জবাই করে ভাগা দিয়ে কুত্তা দিয়ে খাওয়াতে হবে। থাবা বাবা তুমি মরনি, তুমি বেঁচে থাকবে আমাদের মাঝে। আমরা লজ্জিত তোমাকে আমরা বাঁচাতে পারিনি। আর না, এইবার আন্দোলন আরো বেগবান করে তুলুন। থাবা বাবার খুনি পিশাচগুলোর যাতে ভয়াবহতম নজির্বিহীন দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয় তার দাবি নিয়ে পথে নামুন। আমাদের চিরদিনের মত অপরাধী করে থাবা খুন হয়ে গেলেন। লজ্জা, লজ্জা, পুরো জাতির লজ্জা। এ লজ্জা কোথায় রাখি। থাবা, যতক্ষন তোমার খুনের বিচার না হয় ততদিন তুমি কাউকে ক্ষমা করো না।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৩ thoughts on “একজন থাবা বাবা এবং আমাদের লজ্জা

  1. আমার মনে হয় আন্দোলনটাকে একটা
    আমার মনে হয় আন্দোলনটাকে একটা নতুন রুপ দেওয়া বাঞ্চনীয় কেন না এই ভাবে হবে না। সেই ৫ তারিখ থেকে শুরু হওয়া আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের মধ্যে কেমন প্রভাব ফেলছে বুঝতে পারছি না। ইসলামের নাম করে যারা এরাকম ঘৃন্য কাজ আজও করে বেরাচ্ছে তাদেরকে সরকার এখনো সহ্য করে আছে কিভাবে ? আর কটা লাশ পরলে তারপর সরকারের টনক ণড়বে? এটা বুঝতে পারছি যে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির রায় কার্যকর করা এবং জামায়াত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করার ব্যপারে বহি:বিশ্বের (বিশেষ করে বড় মুসলিম দেশগুলো যারা এই রাজাকারদের সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানে না)চাপ আছে। কিন্তু বাংলাদেশ তো স্বাধীন স্বার্বভৌম দেশ এটাও একটা মুসলিম কান্ট্রি, আমরা অবশ্যই ইসলাম বিরোধী নই, আমরা শুধু চাই যদ্ধের সময় যারা দেশের সাথে প্রিয় মাতৃভূমির সাথে বেইমানি করেছে সেই অভিযোগে অভিযুক্তদের ৭১-এ মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্তদের শাস্তি দেওয়ার বিষয়ে বহির্বিশ্বের নেতিবাচক চাপ আমাদের জনগনগে সহ্য করতে হবে। ট্রাইব্যুনাল গঠন কালে এবং গঠন হওয়ার পর বলা হয়েছিল যুদ্ধাপারাধীদের বিচারের ক্ষেত্রে বহির্বিশ্বের সাথে আমাদের দেশের যে সম্পর্ক (ব্যবসা বানিজ্য ইত্যাদি) তাতে কোন সমস্যা হবে না। তবে কেন এই মূহূর্তে পদে পদে তা আমাদের অনুভব হচ্ছে। সরকার বার বার ভুলে যাচ্ছে বর্তমান আন্দোলন সরকারের পক্ষে নয় বরং দেশের ১৫ কোট জনগনের। সরকার যদি এটা ভেবে ভুল করে যে নির্বাচনকে সামনে রেখে তারা একটা খেলা খলবে তবে এটা আওয়ামিলিগ সরকারের জীবদ্দশায় সবচেয়ে বড় ভুল। :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি: :মাথাঠুকি:

    1. সরকার বার বার ভুলে যাচ্ছে

      সরকার বার বার ভুলে যাচ্ছে বর্তমান আন্দোলন সরকারের পক্ষে নয় বরং দেশের ১৫ কোট জনগনের। সরকার যদি এটা ভেবে ভুল করে যে নির্বাচনকে সামনে রেখে তারা একটা খেলা খলবে তবে এটা আওয়ামিলিগ সরকারের জীবদ্দশায় সবচেয়ে বড় ভুল।

      :বুখেআয়বাবুল:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 24 = 28