ভারতের পাগলামি

আগে ভারত ছিল ধর্ষক রাষ্ট এখন পাগল রাষ্ট হিসেবে পরিনত হয়েছে।তারা এখন নারীদের ব্যাবহারের জন্য নতুন অস্ত্র তৈরি করেছে যার নাম নির্ভিক।বলা হচ্ছে এই আগ্নেআস্ত্র নারীদের ধর্ষন থেকে রক্ষা করতে পারবে।ভারত কি বুঝতে পারছে না যে এর মাধ্যমে তারা প্রমান করলো তারা নারীদের নিরাপত্তা দিতে সম্পূর্নভাবে ব্যার্থ।আরো আশ্চর্য বিষয় হচ্ছে এই অস্ত্রের দাম রাখা হয়েছে একলাখ বাইশ হাজার রুপি।যে ভারতে ৪৫%লোক দারিদ্র সিমার নিচে বাস করে সেখানে একলাখ বাইশ হাজার রুপির অস্ত্র তাদের জন্য শুধু অবাস্তবই নয় বরং ফাইজলামিও বটে।আর ভারতে যেখানে অধিকাংশ স্থানেই অস্ত্র বহন নিষেধ সুতরাং সেখানে অস্ত্রের মাধ্যমে নিরাপত্তা বিধান রসিকতার মতো মনে হচ্ছে।আর অস্ত্র থাকলেই নারী সেটা কতটা ব্যাবহার করতে সক্ষম হবে সেটাও ভেবে দেখার বিষয়।আর যারা বলছেন নারীদের অবশ্যই অস্ত্রের প্রয়োজন রয়েছে অথবা একজন পুরুষ অস্ত্র ব্যাবহার করতে পারলে নারী কেন পারবে না? তবে তাদেরই এই নিয়মের প্রথম বিরোধিতা করা উচিৎ কারন এর ফলে নারী পুরুষের বিভেদ সৃষ্টি করা হয়েছে। এ অস্ত্র নারীদের জন্য অালাদা ভাবে তৈরি।পুরুষ যে অস্ত্র ব্যবহার করে সেই অস্ত্রইতো নারীদের দেয়া যায়।তাদের জন্য মাত্র ৫০ফুট দুরের নিশানায় ব্যাবহারের জন্য আলাদা অস্ত্র কেন? আর যদি কোনো নারী এই অস্ত্র ব্যাবহার করেই ফেলে তবে তাকে হত্যার অভিযোগে বাকি জীবন জেলে বসেই কাটাতে হবে। আসলে এসব উদ্যোগ নারীকে রক্ষা বা এ সম্পর্কিত কোনো বিষয়ই নয় এটা পুজিবাদিদের নতুন ধান্ধা।যারা নারীকে পন্য হিসেবে ভোগ করেছে তারাই নারীর জন্য এই নতুন পন্য আনছেে।এর ফলে ভোগবাদিরা আরো ভালো ভাবে ভোগ করতে পারবে।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৬ thoughts on “ভারতের পাগলামি

  1. ভারতের সমস্যা ভারত দেখুক ,
    ভারতের সমস্যা ভারত দেখুক , আমাদের সমস্যা কিভাবে মিটাবো সেইটা বলুন । :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ:

  2. লেখার পরিধি খুবই ছোট হয়ে
    লেখার পরিধি খুবই ছোট হয়ে গেছে। যদিও বিষয়টি আরও যুক্তিপূর্ণ ভাবে উপস্থাপন করা যেতো… ভবিষ্যতে বিষয়টি খেয়াল রাখবেন বলে আশা করছি… :ধইন্যাপাতা:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

2 + 2 =