ভারতবর্ষের একজন উজ্জ্বল নক্ষত্র পন্ডিত “চানক্য” (২য় পর্ব )।

জন্মঃ খৃষ্ট পূর্ব ৩৭০ অব্দ-তে অখন্ড ভারতের বর্তমান পাকিস্তানের তক্ষশীলায় জন্ম গ্রহন করেন
মৃত্যুঃ খৃস্ট পূর্ব ২৮৩ অব্দ ।
নামঃ বাবামায়ের দেওয়া নাম বিষ্ণুগুপ্ত । ছদ্য নাম কৌটিল্য (কুটনীতির কারনে)।
শিক্ষাঃ তিনি বর্তমান পাকিস্তানের তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখা পড়া করেন ও পরে সেখানে অধ্যাপনাও করেন ।

কর্ম জীবনঃ তিনি সেই বিখ্যাত তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা দিয়ে শুরু করে মৌর্য বংশের উপদেষ্ঠা ও প্রধানমন্ত্রী পদে নিযূক্ত ছিলেন । অর্থ দূর্নীতি সম্পর্কে উনার মহান উক্তি – “যে রাজা শত্রুর গতিবিধি সম্পর্কে ধারণা করতে পারে না এবং শুধু অভিযোগ করে যে তার পিঠে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে, তাকে সিংহাসনচ্যুত করা উচিত।”

চাণক্য শ্লোক
বাংলায় প্রচলিত বাকী কিছু চাণক্য শ্লোক নিচে উল্লেখ করা হলো –

• কোকিলের কণ্ঠস্বরই তার রূপ, নারীর রূপ তার পবিত্রতায়, বিদ্যা হ’ল কুতসিত পুরুষের রূপ , তপস্বীদের রূপ হলো ক্ষমা ।
• প্রাজ্ঞ ব্যাক্তির অর্থ ক্ষয় , মনো কষ্ট, গৃহের অনাচার , বঞ্চনা এবং অপমানের কথা কখনও অন্যের কাছে প্রকাশ করে না ।
• এমনি এমনি কেউ বন্ধু বা শত্রু হয় না । কারন বশতঃই মানুষ মানুষের শত্রু বা মিত্র হয়ে থাকে ।
• বিশ্বাসঘাতক বন্ধুর সংগে পুনরায় যে সদ্ভাব করে সে আসলে কাকুড়তলায় গর্ভধারনের মতই নিজের মৃত্যু ডেকে আনে ।
• অগ্নি দ্বীজাতি বা ব্রাম্মন, ক্ষত্রিয় ও বৈশ্যের গুরু । ব্রাম্মন , বৈশ্য, শুদ্র এই সকলের গুরু হলো ব্রাম্মন । স্ত্রীদের একমাত্র গুরু স্বামী এবং অতিথি সকলের গুরু ।
• যে কোন মাতা – পিতা নিজের সন্তানের কাছে শত্রুরূপে পরিগনিত হন যদি তাঁরা সন্তানকে উপযুক্ত শিক্ষা দান না করেন ।
• রাজা যদি মূর্ঝকে কাজে নিযুক্ত করেন তবে সেই রাজা তিনটি দোষের ভাগী হন – অখ্যাতি, অর্থ হানি ও নরকবাস ।
• মেঘ যেমন সূয কে আবৃত করে তেমনি বহু মূর্খ ব্যক্তি পশুর মত পরস্পরের প্রতি হিংসা গ্রস্ত হয়ে সমস্ত গুনকে আবৃত করে ফেলে ।
• যার নিজের বুদ্ধি নাই, শাস্ত্র তার কি কাজে লাগবে !
• যা নিশ্চিত বিষয় ত্যাগ করে অনিশ্চিতেরই সেবা করে তার নিশ্চিত বিষয় নষ্ট হয় । আর অনিশ্চিত তো বিনষ্ট হয়েছেই ।
• ঋন গ্রহনকারী পিতা, দুশ্চরিত্রা মা, রূপবতী স্ত্রী ও মূর্খ পুত্র শত্রু রূপেই গন্য হয় ।

• প্রাজ্ঞ ব্যক্তিকে রাজকাযে নিযুক্ত করলে রাজা স্বয়ং তিনটি গুনের অধিকারী হন – যশ, স্বর্গলাভ ও প্রভুত অর্থলাভ ।
• যার পুত্র ভৃত্য ও স্ত্রী বশে থাকে অভাবের মধ্যেও সদাপ্রসন্ন, এই পৃথিবীতে সংসার করলেও প্রকৃত পক্ষে সে স্বর্গেই বাস করে ।
• বিদ্যাহীন জীবন শূন্য, শূন্য বন্ধুবিহীন পরিবেশ, পুত্রহীন গৃহ শুন্য, দারিদ্রের সবই শূন্য ।
• যে শৈশবে বিদ্যা অর্জন করেনি, দ্বিতীয় ভাগে বা যৌবনে অর্জন করেনি অর্থ, তৃতীয় ভাগে পূন্য অর্জন করেনি সে জীবনের চতুর্থভাগে বা বার্ধক্যে কি বা করবে ?
• প্রাজ্ঞ দরিদ্র হলেও দুঃখের নয়, বন্ধু পন্ডিত হলেও দুঃখের কারন থাকে না । সে রূপ বিধবা নারী পুত্রপৌত্রের দ্বারা লালিত হলেও দুঃখজনক হয় না ।
• বংশকে রক্ষা করার জন্য একজনকে ত্যাগ করা উচিত । গ্রাম রক্ষার জন্য উচিত বংশ ত্যাগ করা । দেশ রক্ষার জন্য গ্রাম ত্যাগ কর্মা উচিত । আর নিজেকে রক্ষার জন্য পৃথিবী ত্যাগ করা উচিত ।
• বস্ত্রহীন অলংকার শোভনীয় নয় । ঘৃতহীন ভোজন সুখকর নয় । স্তনহীন নারী সুন্দর নয় । আর বিদ্যাহীনের জীবন তো সম্পূর্ন অর্থহীন ।
• প্রানহানিকর ছয়টি কারন যথা – শুকনা মাংশ খাওয়া, বৃদ্ধা স্ত্রীর সাথে মিলন, শরতের প্রথম রোদ, কাচা দই, প্রভাতে মৈথুন ও নিদ্রা যাওয়া ।
• নদীর তীরে যার শস্য ভূমি, স্ত্রী যার আসক্ত পরপূরুষে, পুত্র যার উদ্ধত তার জীবন ও মৃত্যু দুই-ই সমান – এই বিষয়ে কোন সন্দেহ নাই ।
• জলে শিলা ভাসছে , বানর গান করছে – এমন অসম্ভব ঘটনা নিজের চোখে দেখলেও কখনো তা ব্যক্ত করা উচিত নয় ।
• অবহেলায় ঘটে কর্মনাশ, দারিদ্রের ঘটে বুদ্ধিনাশ, কৃপাভিক্ষায় সন্মাননাশ আর যত্রতত্র খাদ্য গ্রহনে ঘটে বংশের গৌরবনাশ ।
• অভ্যাসহীন বিদ্যা বিষতুল্য । অজীর্ন অবস্থায় আহার গ্রহন বিষ তুল্য । দরিদ্রের বহু সন্তান বিষতূল্য এবং বৃদ্ধের তরুনী স্ত্রী বিষতুল্য ।
• যেখানে শ্রোতা নেই সেখানে বক্তা কি করবে ? যে দেশে শুধুই নগ্ন ভিক্ষু সেখানে রজক কি করবে ?
• বুদ্ধিমান ব্যক্তি এক পায়ে চলেন আর এক পা স্থির রাখেন। পরবর্তি স্থান না দেখে কখনই পূর্ব স্থান ত্যাগ করা উচিত না ।
• লোভীকে বশ করতে হয় অর্থ দিয়ে, ক্রুদ্ধ ব্যক্তিকে বিনয় প্রদর্শন করে, মূর্খকে বশ করবে তার মনমতো কথা বলে আর সত্য কথায় বশ করবে পন্ডিতকে ।

• অর্থ ও সম্পদের আদান-প্রদানে, বিদ্যা উপার্জনে, আহারে ও মামলা মোকাদ্দমায় সর্বদা লজ্জা ত্যাগ করা উচিত ।
• সিংহের কাছ থেকে ১টি, বকের কাছ থেকে ১টি, কুকুরের কাছ থেকে ৬টি, গাধার কাছ থেকে ৩টি, কাকের কাছ থেকে ৫টি, এবং মোরগের কাছ থেকে ৪টি গুন শিক্ষনীয় ।

দেখি চানক্যের এই উপদেশ অনুসারে সেই প্রানীগুলির সেই গুনাবলি আছে কিনা । যদি থাকে তাহলে সেগুলি কি কি –

সিংহের ১টি গুন ঃ সিংহ কখনই অবিবেচকের মত কাজ করে না । ভাল মত যাচাই বাছাই করে তবেই সেই কাজটি খুব যত্ন নিয়ে করে –এই গুনটিই নিতে হবে ।
বকের ১টি গুন ঃ বক খুবই একাগ্রতা নিয়েই মাছ ধরে ।এই একাগ্রতা গুনটিই নিতে বলেছেন ।
কুকুরের ৬য়টি গুন ঃ কুকুর মঙ্গলাকাঙ্ক্ষী, বিশ্বাসী, সহজেই ঘুমিয়ে পরে, সহজেই জেগে ঊঠতে পারে , সাহস ও অল্পেই সন্তুষ্ট – এই ৬টি গুন নিতে হবে ।
গাধার তিনটি গুন ঃ নিরন্তর ভার বহন ক্ষমতা, শীত গ্রীস্মে কষ্ট না পাওয়া ও সর্বদা সন্তুষ্ট থাকা – এই ৩টি গুন নিতে হবে ।
কাকের ৫টি গুন ঃ গোপনে মৈথুন, কর্তব্যে লজ্জাহীনতা, যথা সময়ে সঞ্চয় করা, সর্বদা সতর্ক থাকা ও আলস্য হীনতা – এই ৫টি গুন নিতে হবে ।
মোরগের ৪টি গুন ঃ যুদ্ধ, প্রাতরুত্থান, সপরিবারে ভোজন ও বিপদগ্রস্থ নারীকে রক্ষা করা – এই ৪টি গুন নিতে হবে ।

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

২ thoughts on “ভারতবর্ষের একজন উজ্জ্বল নক্ষত্র পন্ডিত “চানক্য” (২য় পর্ব )।

  1. • যা নিশ্চিত বিষয় ত্যাগ করে

    • যা নিশ্চিত বিষয় ত্যাগ করে অনিশ্চিতেরই সেবা করে তার নিশ্চিত বিষয় নষ্ট হয় । আর অনিশ্চিত তো বিনষ্ট হয়েছেই ।

    অভ্যাসহীন বিদ্যা বিষতুল্য । অজীর্ন অবস্থায় আহার গ্রহন বিষ তুল্য । দরিদ্রের বহু সন্তান বিষতূল্য এবং বৃদ্ধের তরুনী স্ত্রী বিষতুল্য ।

    লোভীকে বশ করতে হয় অর্থ দিয়ে, ক্রুদ্ধ ব্যক্তিকে বিনয় প্রদর্শন করে, মূর্খকে বশ করবে তার মনমতো কথা বলে আর সত্য কথায় বশ করবে পন্ডিতকে ।

    যদিও পুরা লেখাটাই ভালো লেগেছে কিন্তু উপরের লাইনগুলো… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :তালিয়া: :তালিয়া:
    আর…

    মোরগের ৪টি গুন ঃ যুদ্ধ, প্রাতরুত্থান, সপরিবারে ভোজন ও বিপদগ্রস্থ নারীকে রক্ষা করা – এই ৪টি গুন নিতে হবে ।

    এই বিষয়টা দুর্দান্ত… :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ: :থাম্বসআপ:
    আর সবশেষে এই অজানা বিষয়গুলো জানানোর জন্য দাদাভাইকে… :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা:

  2. দিদিভাই, আমার কাছে অসাধারন
    দিদিভাই, আমার কাছে অসাধারন লেগেছে যা যেকোন ধর্ম গ্রন্থ-এর বানী থেকে অতি উত্তম ও শ্বাশ্বত । কষ্ট করে পড়ার জন্য :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :ধইন্যাপাতা: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ: :গোলাপ:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 5 = 15