ধ্বংসাত্মক হরতাল কখনই প্রতিবাদের ভাষা হতে পারেনা …

ধ্বংসাত্মক হরতাল কখনই প্রতিবাদের ভাষা হতে পারেনা । আর হরতাল তখনই সম্ভব যখন সর্ব সাধারন থেকে শুরু করে সবাই হরতালকে সমর্থন জানাবে । একটি হরতাল তখনই প্রতিবাদ হবে যখন হরতালকে সমর্থন জানয়ে কৃষক কাজে না গিয়ে ঘরে বসে থাকবে । ঘরে বসে থাকবে সকল শ্রমজীবী মানুষ থেকে শুরু করে সকল শ্রেণির মানুষ । কিন্ত জামাত শিবিরের হরতাল মানেই এখন আতঙ্ক । যে আতঙ্কে বিভ্রাট ঘটে পাবলিক পরীক্ষা থেকে শুরু করে সকল পরীক্ষার । শুধু তাই নায় পিছিয়ে পড়ে দেশের অর্থনীতি । থমকে যায় জীবনযাত্রা ।

ধ্বংসাত্মক হরতাল কখনই প্রতিবাদের ভাষা হতে পারেনা । আর হরতাল তখনই সম্ভব যখন সর্ব সাধারন থেকে শুরু করে সবাই হরতালকে সমর্থন জানাবে । একটি হরতাল তখনই প্রতিবাদ হবে যখন হরতালকে সমর্থন জানয়ে কৃষক কাজে না গিয়ে ঘরে বসে থাকবে । ঘরে বসে থাকবে সকল শ্রমজীবী মানুষ থেকে শুরু করে সকল শ্রেণির মানুষ । কিন্ত জামাত শিবিরের হরতাল মানেই এখন আতঙ্ক । যে আতঙ্কে বিভ্রাট ঘটে পাবলিক পরীক্ষা থেকে শুরু করে সকল পরীক্ষার । শুধু তাই নায় পিছিয়ে পড়ে দেশের অর্থনীতি । থমকে যায় জীবনযাত্রা ।
শাহবাগ থেকে শিক্ষা গ্রহন করা উচিত এই জামাত শিবির কে । শিক্ষা গ্রহন করা উচিৎ সেই শিশু থেকে যে শাহবাগ গণজাগরণ মঞ্চে এসেছিলো ‘রাজাকারের ফাঁসি চাই’ ফেস্টুন নিয়ে । শুনে খুব খুশি লাগছে যে দেল্লা রাজাকারের রায় । কিন্তু একটা ভয় কাজ করছে । ফাঁসি হবে তো ? নাকি আবারো ছেড়ে দেয়া হিবে এই রাজাকারকে ? ? ?
কাল হরতালের ডাক দিয়ে কি বুঝাতে চায় বেজন্মারা ? আমাদের তো জানার আর বাকি নেই যে জামাত শিবির বেজন্মা, পাকি-প্রেতাত্মা, কিংবা ছাগু । বারংবার হরতাল দিয়ে আর কি প্রমান করবে ? আমাদের তরুনের শক্তি সম্পর্কে তারা অবগত । ‘৫২, ‘৭১, ‘৯০ আর এখন ২০১৩ । আমাদের শক্তি সম্পর্কে প্রমান দিতে আর কতটি সাল লাগবে ?
এক হও । কালকের হরতাল প্রতিহত কর । হটাও রাজাকার । এখন আর জামাত শিবির বলে সম্মান দিতে চাই না । তাদের পরিচয় একটি শব্দে সীমাবদ্ধ । RAJAKAR ……….

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৪ thoughts on “ধ্বংসাত্মক হরতাল কখনই প্রতিবাদের ভাষা হতে পারেনা …

  1. কালকের হরতাল দেশপ্রেমিক জনতা
    কালকের হরতাল দেশপ্রেমিক জনতা রুখে দাঁড়াবে। গাড়ি চলবে, দোকান-পাট খুলবে, অফিস চলবে, রাস্তাঘাটে যেখানে জামায়াত-শিবির পাওয়া যাবে পিষে মারা হবে। দেশদ্রোহীদের জন্য কোন মানবতা নাই। এই যুদ্ধ দেশের অস্তিত্ব রক্ষার যুদ্ধ। সকালে রাজপথে সবাই থাকব। দেশের সম্পদ আমরাই পাহারা দেব। জামায়াত-শিবিরের নাশকতায় আমাদের দেশ ও জনগণের কোন সম্পদ আমরা নষ্ট হতে দেবনা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

+ 28 = 29