অনুগল্পঃ নিঃসঙ্গ বিশ্বকাপ

শাহেদ নিজেও জানে – ‘ভ্রু’ কোঁচকালে তাকে দেখতে খুব বাজে লাগে।

পারতপক্ষে শাহেদ সহজেই ‘ভ্রু’ কোঁচাকায় না। মানুষগুলো কেমন যেন যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছে। আপনমনে নিজের মনের সুখ-দুঃখের অনুভূতিগুলিকে শারিরিক অভিব্যক্তির মাধ্যমে যে প্রকাশ করবে, তাতেও মানুষ বিরক্ত হয়। শাহেদের অতি গোপনে ‘ভ্রু’ কোঁচকানোটাও মানুষের চোখে পড়ে যায়। মাঝে মাঝে শাহেদের ধারনা হয়, ইদানিং মানুষগুলো বড় বেশী খুঁত-খুঁতে স্বভাবের হয়ে গেছে। সামান্য ‘ভ্রু’ কোঁচকানোর মধ্যে মানুষ এত বিরক্তির যোগান পায় ক্যামনে ? রাগে এক ধলা থুঃথুঃ মুখ উগ্‌রে বের হয়ে গেল।

শাহেদ আপন মনে বিড় বিড় করল- ‘না, রাগকে প্রশ্রয় দিতে নেই’। সেদিন পাবলিক বাস-এ চড়ার সময় একটা স্টিকারে লিখা বানী- ‘রেগেছেন কি হেরেছেন’ দেখে শাহেদের খুব মনোপুত হয়েছিল।

‘বাহঃ, খুব সুন্দর কথাতো। রেগেছেন কি হেরেছেন।’

মহুর্তেই স্টিকারের বাণীটি শাহেদের রাগকে পানি করে দিল। না, রাগা যাবে না। সত্যিই তো, রেগে জেতার ইতিহাস কি মানব সভ্যতা তৈরী করতে পেরেছে? রাগলেই হারতে হয়।

শাহেদ’র ধারণা, রাগ করারও একটা বয়স আছে। কিন্তু কতটুকু বয়স পর্যন্ত রাগ করাটা মানাসই, সেটা ঠিক বুঝে উঠতে পারছে না। তবে, পঞ্চাশ বছর রাগ করার জন্য যে একদম বেমানান, সেটা শাহেদ স্পষ্টতই অনুধাবন করতে পারছে। কিশোর বয়সটা হয়তঃ রাগ করার জন্য ভরা পূর্ণিমা। রাগ করে ভাত খাবে না। মা’র সাথে রাগ করলে বাবা এসে রাগ ভাঙ্গাবে, বাবার সাথে রাগ করলে মা’র কাছে চোখ কঁচলাতে কঁচলাতে ফোলা চোখ দেখিয়ে সহানুভূতি আদায় করবে।

কিশোর বয়সটা শাহেদের কাছে ইদানিং খুব আকর্ষনীয় বয়স মনে হয়। আহ, আজ যদি রিয়াজ বেঁচে থাকত, তাহলে আঠার বছর পূর্ণ হত। ভরা পূর্ণিমা।

‘ভ্রু’ কোঁচকানো কি রাগের পর্যায়ে পড়ে? এটি রাগের নাকি বিরক্তির বহিঃপ্রকাশ? মাঝে মাঝে শাহেদ ঠিক বুঝে উঠতে পারে না। শাহেদ ভাবে- ‘থাকনা, ‘ভ্রু’ কোঁচকানো শাহেদকে মানুষ যেহেতু পছন্দ করে না, পরিহার করে চলাই উত্তম’। জীবনের সাথে আপোষ করতে করতে সবইতো বাদ দিয়েছে। না হয় ‘ভ্রু’ কোঁচকানোটা বাদ দিবে এবার।

সিদ্ধান্তটি বাস্তবায়ন করার পরিপূর্ন মানষিকতা যখন তৈরী হচ্ছিল, তখনই বাঁধল বিপত্তি। সাধারণতঃ কোন বিষয়ে শাহেদ একবার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললে সহজে আর সিদ্ধান্ত থেকে ফেরত আসে না। কিন্তু ক্রিকেট বিশ্বকাপ শাহেদকে এ প্রথম নিজের নেওয়া সিদ্ধান্তের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিল। ক্রিকেট বিশ্বকাপ, বিশেষভাবে ক্রিকেট নিয়ে সবার এই মাতামাতি, আদিখ্যেপনা শাহেদের ‘ভ্রু’ কে আবার অবাধ্য হতে বাধ্য করল। ক্রিকেট উৎসবের দিনটি যতই ঘনিয়ে আসছে, শাহেদের ধারনা- ‘তার ভ্রু’টি ততই অধিকতর আকারে কোঁচকাচ্ছে। রাস্তা-ঘাট, অফিস-আদালত, টেলিভিসনের চ্যানেলগুলো, পত্রিকার পাতা, বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল, বিজ্ঞাপনে ক্রিকেট তারকার আধিক্য, টিভিতে ক্রিকেটিয় নাটকের সিরিয়াল, হালের আধুনিক এফ,এম রেডিও যেখানেই যাও শুধু ক্রিকেট আর ক্রিকেট। আরে বাবা, এর বাহিরেওতো জীবন আছে।

শাহেদের মনে হচ্ছে, সবার এই ক্রিকেট উল্লাসে মেতে উঠা যেন তার বিরক্তিতে ‘ভ্রু’ কোঁচকানোকে উস্‌কে দেওয়ার জন্যই। কিসের বিশ্বকাপ ! কিসের ক্রিকেট!! রিয়াজবিহীন ক্রিকেট’র অস্ত্বিত্তই যেন শাহেদ চিন্তা করতে পারে না।

রিয়াজ হচ্ছে শাহেদের বড় ছেলে। প্রথম সন্তান সব বাবা-মায়ের কাছেই বড় আদরের হয়। ভরা যৌবনের সব স্বপ্ন অংকিত হয় প্রথম সন্তানকে ঘিরে। পৃথিবীর সব বিখ্যাতদের কীর্তি শাহেদ রিয়াজের মধ্যে দেখত। ছেলের মধ্যে কখনো আইনষ্টানের মত বিজ্ঞানী, কখনো ভাস্কোদাগামা, কখনও কনফুসিয়াস, চে-গুয়েভারা, লেলিন, মাওসেতুং, আব্রহাম লিংকন, বঙ্গবন্ধু, নির্মেলেন্দু গুন কিংবা সৈয়দ শামসুল হক’র ছায়া দেখতে পেত। দেখতে দেখতে চরম এক সুখানুভূতির সঙ্গীতে ছেলেকে নিয়ে শাহেদ হাওয়ায় ভাঁসতো।

ছেলেকে নিয়ে শাহেদের এই স্বপ্নের ভেলায় রিয়াজের মা’ও যাত্রী হত। হাওয়ায় ভেসে ভেসে লাল পরী, নীল পরী, সবুজ পরীর দেশে ঘুরে বেড়াত। কিন্তু একি ! ছেলে যতই বড় হচ্ছে ততই ক্রিকেট পিপাষু হয়ে উঠছে।

নিজে ক্রিকেট খেলতে না পারলেও, শাহেদের ক্রিকেটের প্রতি ছিল এক অদম্য নেশা। অফিস থেকে ফিরেই ছেলেকে নিয়ে টিভি সেটের সামনে বসে যেত চলমান কোন ক্রিকেট সিরিজের শুরা পান করতে। যে কোন ক্রিকেট আসরের টেলিভিসন দর্শক হিসাবে শাহেদের কোন জুড়ি ছিল না। বাবার ক্রিকেটের প্রতি এই আগ্রহ শিশু রিয়াজের মনে সবার অজান্তে ক্রিকেটটের প্রতি এক নিদারুন ভালবাসা তৈরী হল। ক্রিকেটের প্রতি ছেলের এই আগ্রহ শাহেদকে স্বপ্নের এফিডেভিট করতে বাধ্য করল। শিশু রিয়াজের এই ক্রিকেট প্রীতি শাহেদের স্বপ্নের ভেলা ভিড়ল কপিল দেব, ওয়াসিম আক্রাম, ইমরান খান, ব্রায়ান লারা, শচীন টেন্ডুলকারদের দরজায়। মনের অজান্তে শাহেদের কিশোর বেলার স্বপ্ন পুরন না হওয়ার বেদনা প্রশমিত করতে ছেলের মধ্যে ছড়িয়ে দিল ক্রিকেট উন্মাদনা। সেই উন্মাদনা ছড়িয়ে গেল শিশু রিয়াজের রক্তের অনুচক্রিকায়।

শাহেদ রিয়াজকে প্রথাগত শিক্ষার পাশাপাশি জেলার খ্যাতি সম্পন্ন ক্রিকেট একাডেমীতে অনুশীলনের ব্যবস্থা করে দিল। সপ্তাহে তিনদিন শাহেদ রিয়াজকে অনুশীলনে নিয়ে যেত এবং নিয়ে আসত। ক্রিকেট প্রশিক্ষকের মুখে ছেলের ক্রিকেট প্রতিভার সম্ভবনার কথা শুনে গর্বে হাওয়ায় ভাসত। ছেলের এই ক্রিকেট প্রতিভার কথা অফিসের কলিগদের বলতে শাহেদ খুব গর্ব অনুভব করত। পাড়ার সবাই বলত, ক্লাস সিক্সের পড়ুয়া এই পিচ্চিটা একদিন একটা কিছু হবেই। শুনে শাহেদের চোখে পানি ছল্‌ ছল্‌ করত আনন্দে। রিয়াজের মাকে বলত- দেখবে আমাদের রিয়াজ একদিন বিশ্বকাপ খেলবে।

অন্যদিনের মত সেদিনও শাহেদ ছেলেকে নিয়ে ক্রিকেট অনুশীলনে গেল। শারীরিক কসরতের পর একাডেমীর ছেলেদের মধ্যে প্রীতি ম্যাচে রিয়াজ ব্যাটিং করছিল। ছেলের ব্যাটিং নৈপুণ্যে শাহেদ শিশুসূলভ অন্য এক উত্তেজনায় চিৎকার করছিল, মারো ছক্কা, …..মারো চার। সাবাস বাঘের বেটা, সাবাস। ছেলে যেন খেলছে বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে। ব্যাট লী’কে করছে তুলোধুনো। বাবার এই শিশুসুলভ আচরণ শিশু রিয়াজকে ব্যাটিংয়ের মাদকতায় পেয়ে বসল। প্রচন্ড গরমেও যেন হাল না ছাড়া খেলোয়াড়। গরমে অতীষ্ট শাহেদের ব্রায়ান লারা হেলমেট খুলে ব্যাটিং করছে। প্রতি বলে রান। রানের বন্যায় প্লাবিত মাঠ, প্লাবিত শাহেদ।

হঠাৎ প্রচন্ড গতির একটা বল ব্যাটের কাঁনায় লেগে রিয়াজের কঁপালে সজোরে আঘাত করল। নিমিষেই রিয়াজের ছোট্ট শরীরটা কাঁপুনি দিয়ে ঢলে পড়ল মাঠে। নিথর হয়ে গেল সব। হাসপাতালের ইমাজেন্সী কক্ষ আর পেরুতে হল না। হেলমেটবিহীন রিয়াজকে একটি বলই নিথর করে দিল। স্বপ্নের সকরুণ পরিনতি যে এত নিঠুর হতে পারে, তা শাহেদ কোনদিন কল্পনাও করেনি।

কেন ভ্রু কোঁচকাবেনা শাহেদ? যে ক্রিকেট শাহেদের স্বপ্ন গড়ল, সে ক্রিকেটেইতো শাহেদের সব কিছু চুরমার করে দিল। যে দিন থেকে রিয়াজ নেই হয়ে গেল, সে দিন থেকে শাহেদ নিজেকে ক্রিকেট শুন্য করে দিল। আহা…. আজ রিয়াজ যদি বেঁচে থাকত নিঃশ্চয় বাংলাদেশে দলের বিশ্বকাপ সদস্য হিসাবে থাকত। আজ রিয়াজ নেই, তাই বিশ্বকাপটাও নিঃসঙ্গ।

…….. ক্রিকেট প্রসঙ্গে নিঃসঙ্গ এই বিশ্বকাপে শাহেদের ‘ভ্রু’ কুঁচকানোর পূর্ণ অধিকার আছে।।

[গল্পটি ক্রিকেট বিশ্বকাপ উপলক্ষে ১৬ই ফেব্রুয়ারী’২০১১-তে অন্য একটি ব্লগে প্রকাশিত]

ফেসবুক মন্তব্য
শেয়ার করুনঃ

৫ thoughts on “অনুগল্পঃ নিঃসঙ্গ বিশ্বকাপ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

1 + 8 =