বৃটেন, রেবেকা ও কৃষাণ কিসসা (পর্ব-২) শেষ পর্ব

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

বাবা আমার সাথে কথা বলেননা অনেকদিন হলো। কোন বিশেষ দরকার হলে মায়ের মাধ্যমে বলেন। ঘরে তেমন কোন কাজও করিনা। প্রথমত বাড়ির পাশের প্রাইমারি স্কুলটিতে সকাল দশটার দিকে একটা ভাষাভিত্তিক ক্লাস নেই। যে স্কুলের হেডটিচার আবার আমার মায়ের পেটের আপন বোন। আর মাঝে মাঝে আমার পুরনো হাইস্কুলে দুয়েকটি সাহিত্য বা ভাষার…

বিস্তারিত পড়ুন...

বৃটেন, রেবেকা ও কৃষাণ কিসসা (পর্ব-১)

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

আজ বাবার সাথে আবার মন কষাকষি হলো আমার। কিছু টাকা চেয়েছিলাম তার কাছে কিন্তু তিনি এক পয়সাও দেবেন না আমাকে! মেজাজ গরম করে বললেন – আমাকে না দিয়ে টাকা জলে ফেলে দেবেন তিনি কিন্তু আমার মত অকম্মা গাধার পেছনে আর পাই পয়সাও খরচ করতে রাজি নন তিনি। অন্যদিনের মত আজও…

বিস্তারিত পড়ুন...

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ৯] শেষ পর্ব

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ৯] শেষ পর্ব : সব শুনে খুব মন খারাপ করলো পরী ফ্রিয়া। যদিও এটা পরীদেরই আবাসস্থল। কিন্তু মাকে কথা দিয়েছে এসেছে সে, ফিরে আসবে আবার। আমিও পৃথিবীকে খুব ভালবাসি। বিশেষ করে বাঙালির মাঝে বসবাস করতে চাই আমি। পৃথিবী থেকে কোটি কোটি ট্রিলিয়ন কিমি দূরের গ্লিজ…

বিস্তারিত পড়ুন...

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ৮]

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

অনন্ত চলার পথে আমরা এগিয়ে এলাম আমাদের পৃথিবীর অন্তত ৫০,০০০ আলোক বর্ষ দূরত্বে। মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সির গ্যালাবুয়ার ক্লাস্টার, নরমা আর্ম, স্কাটা ক্রাক্স আর্ম, স্যাগিটুরাস আর্ম, অরিয়ন আর্ম, পার্সুয়াস আর্ম, গিসনাস আর্ম, ক্লোবালুর ক্লাস্টার নক্ষত্রপুঞ্জ এবং আমাদের সৌর মন্ডলীর কাছাকাছি। এ অঞ্চলে উজ্জ্বল সক্রিয় তারার সংখ্যা অন্তত ২০০-বিলিয়ন। যার গ্রহরাজি থাকতে পারে…

বিস্তারিত পড়ুন...

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ৭]

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

“হার্কুলেস ক্যারিনা বরোলেস গ্রেড ওয়াল” গ্যালাক্সিতে মৃত নক্ষত্রের শবদেহ পেলাম আমরা মহাকাশে ভাসমান। সুপারনোভা বিস্ফোরণের কোটি কোটি বছর পর এ নক্ষত্র পরিণত হয়েছে একটা বামন জড়পিণ্ডে। কোন ব্লাকহোলের অভিকর্ষ বলের ভেতরেও যায়নি এ বামন মৃত নক্ষত্র। কালক্রমে সে তার সব জ্বালানি হারিয়ে কঠিন লৌহ আর কার্বনে পরিণত হয়ে একাকি ভেসে…

বিস্তারিত পড়ুন...

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ৬]

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

আবার উড়তে থাকলাম অনন্ত মহাকাশে আমরা। দূরের কত যে নক্ষত্র পরিবার চোখে পড়লো আমাদের! যেদিকে তাকাই কেবল আলোর মালা। উত্তর দক্ষিণ, পূর্ব পশ্চিম, ওপর নিচ কিছুই নেই এ মহাকাশে। যেদিকে চোখ যায় কেবল চোখে পড়লো লক্ষ কোটি তারার মেলা। এবার এলিফ্যান্ট ট্রাঙ্ক নেবুলা জগতে প্রবেশ করলাম আমরা। ওরে বাবা! এতো…

বিস্তারিত পড়ুন...

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ৪]

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

এবার রস নক্ষত্রমালার দিকে পাড়ি দিলাম আমরা। এটিও একটি বামন নক্ষত্র। সম্ভবত অভাবনীয় ঔজ্জ্বলতা বিকিরণ করে এটি পরিণত হতে যাচ্ছে সুপার নোভাতে। বেগুনি রং বিকিরণ করে এখন ঘন নীল বর্ণ ধারণ করেছে এ তারাটি। এর চারপাশের দৃশ্যমান নীহারিকা বা ধূলোর আস্তরণ। এখানেই আমরা পেয়ে গেলাম এক অভিনব অড ক্লাউড এরিয়া।…

বিস্তারিত পড়ুন...

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ৩]

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

শনির উপগ্রহ টাইটানে যেতে চাইলো ফ্রিয়া। আমারো সেটা দেখার সখ ছিলো খুব। কারণ পৃথিবীতে যে দুষ্প্রাপ্য হীরক, তাতে নাকি পূর্ণ শনির এ চাঁদটি। সুতরাং চোখের পলক না ফিরতেই খপখপ পৌঁছে গেল টাইটানে। কিন্তু নামবো কিভাবে এ গ্রহে আমরা? সব ধারালো আর সুঁচালো চকচকে হীরকে পূর্ণ এর ভূমি। রোদের আলো পড়ে…

বিস্তারিত পড়ুন...

বল্টুর মহাকাশ যাত্রা [পর্ব : ১]

Posted in গল্প ঝালমুড়ি ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী স্যাটায়ার

একদিন নির্জন সাগরতীরে ঈশ্বরের সাথে দেখা হয়ে গেল আকস্মিক। তিনি আমার হাত চেপে ধরে চোখ গরম করে বললেন – এই বল্টু! শুনলাম তুই নাকি নাস্তিক? আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করস? – ঠিকই শুনেছেন দাদা! তা আপনে কেডা? – আমারে চিনলি না? আমি মহাবিশ্বের ঈশ্বর! – তাই নাকি? তা আপনে যে ঈশ্বর…

বিস্তারিত পড়ুন...

নিউজিল্যান্ডের পিট দ্বীপ এবং এক মৎস্যকন্যা পর্ব : ১

Posted in গল্প ব্যক্তিগত কথাকাব্য ভ্রমণ কাহিনী

প্রায় ৪-মাস নিউজিল্যান্ডে থাকার পর মনটা উতলা হলো খুব। আরো থাকতে হবে দুমাস। প্রায় ৩০-বছর ঢাকায় বসবাসকারী মানুষ আমি। ফার্মগেট, গুলিস্তানে মানুষে মানুষে ঠেলাঠেলি করতে হাঁটতে হয়। সেই আমি নিউজিল্যান্ডের খ্রাইস্টচার্চে বিকেলে বা ছুটির দিনে হাঁটতে বের হলে রাস্তায় মূলত কোন মানুষই দেখতে পাইনা। মাঝে মাঝে দুয়েকটি গাড়ি চলে যায়…

বিস্তারিত পড়ুন...